প্রেম প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় যুবকের মুখে অ্যাসিড ছুড়ল দুই সন্তানের মা

নিউজ২৪লাইন:

বিবাহিত, দুই সন্তানের মা, তাতে কী, প্রেম কি আর কোনো বাধা মানে? তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় আলাপ হওয়ায় যুবককে প্রেম নিবেদন করে বসেছিল ৩৫ বছরের শিবা। আর সেই প্রেম প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সোজা অ্যাসিড মারল ‘প্রেমিক’ যুবকের মুখে। মারাত্মক জখম নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি সেই যুবক। চিকিৎসকদের আশঙ্কা, দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারেন ওই যুবক।

এমনই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের কেরালার তিরুবন্তপুরমে। ওই নারীর বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে অভিযোগ। গ্রেফতারও করা হয়েছে তাকে। শুরু হয়েছে তদন্তও। এদিকে এমন ঘটনায় হতভম্ব এলাকাবাসীও।
এমনই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের কেরালার তিরুবন্তপুরমে। ওই নারীর বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে অভিযোগ। গ্রেফতারও করা হয়েছে তাকে। শুরু হয়েছে তদন্তও। এদিকে এমন ঘটনায় হতভম্ব এলাকাবাসীও।

ভারতের সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, বছর আঠাশের অরুণ কুমার তিরুবন্তপুরমের বাসিন্দা। তার সাথে ফেসবুকে আলাপ হয় শিবা নামে ওই নারীর। বেশ কিছু দিন দুজনের মধ্যে কথা হয়। ঘনিষ্ঠও হয়ে পড়েন তারা। এর পরই অরুণকে প্রেম প্রস্তাব দেন শিবা। সেই সময়ই প্রকাশ্যে আসে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। অরুণ জানতে পারেন, শিবা বিবাহিতা। তার দুই সন্তান আছে। একথা জানার পরই সম্পর্ক শেষ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন অরুণ। সে কথা শিবাকে জানতেই বাঁধে বিপত্তি।

অরুণের পরিবারের অভিযোগ, সম্পর্ক শেষের কথা বলতেই তেড়ে আসেন শিবা। শুরু হয় অশান্তি। এমনকী, অরুণকে ব্ল্যাকমেল করে টাকা চাইতে থাকেন শিবা। গত ১৬ নভেম্বর বাসার নিকটবর্তী একটি চার্চে আসেন অরুণ। সেখানে শিবাও আসেন। কথা ছিল, চাহিদামতো টাকা দিয়ে সম্পর্কে ইতি টানবেন অরুণ। কিন্তু দেখা হওয়ার পরই অরুণের মুখে অ্যাসিড ছোড়েন শিবা। অ্যাসিডে জখম হয় খোদ শিবাও। কিন্তু গুরুতর জখম হন অরুণ।

প্রথমে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। পরে সরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। চিকিৎসকরা জানান, অ্যাসিডে অরুণের গোটা মুখ ঝলসে গেছে। ক্ষতি হয়েছে চোখেরও। চিরকালের মতো দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারেন তিনি

Spread the love

পাঠক আপনার মতামত দিন