ডামুড্যায় আদালত অবমাননা করে দোকান ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে 

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি
আদালত অবমাননা করে অন্যের দোকান ভেকু  মেশিন দিয়ে ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল হাদী জিল্লুর(৪০) বিরুদ্ধে।পরে অভিযোগের ভিত্তিতে চাঁদাবাজি মামলা করেছেন এক ভুক্তভোগী। সে গত বুধবার(১৫ মে) রাত সাড়ে ১১ টার দিকে মধ্যে সিড্যা জসিম বেপারী(৫০)র একটি টিনের দোকানঘর ভেকু মেসিন দিয়ে জোরপূর্বক ভেঙ্গে ফেলে ঐ ইউপি চেয়ারম্যান। ১৬ মে (বুধবার) সকালে শরীয়তপুর বিজ্ঞ চীপ জুডিঃ ম্যাজিঃ আমলী আদালতে বাদী হয়ে একটি মামলা করেন জসিম বেপারী।
এজাহার সুত্রে জানা যায়,বর্তমান বি.আর.এস রেকর্ডে আংশিক ভুল হওয়ায় আমি বিজ্ঞ ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে বি.আর.এস রেকর্ড সংশোধনের জন্য একটি মামলা দায়ের করে বাদি জসিম বেপারী।, যাহার নম্বর-৮২৩/২০১৫। উক্ত আসামীগণ আমার দায়েরী মামলায় কোন বিবাদীপক্ষ ইউপি চেয়ারম্যান নাই। তবুও পক্ষ নিয়ে গত ১৩ তারিখ(মঙ্গলবার) বিকাল ৫ টার দিকে চেয়ারম্যান জিল্লু বাদির কাছ থেকে ২ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ঐদিন রাত সাড়ে এগারোটার দিকে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে  ভেকু দিয়ে বাদির টিনের দোকান ভেঙ্গে ফেলে। বাদির ও বাদির স্ত্রী বাধা দিলে চেয়ারম্যানের নির্দেশে আশিক,রাব্বি, রোমান  দেশিয় অস্র দিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।
প্রত্যক্ষদর্শী ইব্রাহিম বলেন, আমি রাত ১১ টার পরে এই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছি তখন দেখিয়েছি জিল্লু চেয়ারম্যান তার লোকজন দিয়ে ভেকু দিয়ে এই জসিম ভাইয়ের দোকানটি ভেঙ্গে ফেলতেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী মোঃ সজিব বলেন,জিল্লু চেয়ারম্যান ছাত্রলীগের লোকজন নিয়ে এসে রাতে জসিম ভাইয়ের টিনের দোকানটি ভেঙে ফেলতেছে। জসিম ভাই বাধা দিলেও শুনতেছে না, তাকে মারতেও আসছিল চেয়ারম্যানের লোক।
এ বিষয়ে বাদি জসিম উদ্দিন বেপারী বলেন, আমাদের জমি নিয়ে মামলা চলতেছে স্কুলের জায়গার সাথে কিন্তু আমার রাস্তার পারে দোকান এই জায়গা আমাদের। জিল্লুর চেয়ারম্যানের এখানে কোন জায়গা নেই কিন্তু তিনি পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আমার দোকান ভাঙচুর করছে।বিকেলে আমার থেকে ২ লক্ষ টাকা চেয়েছিল আমি দেই নাই বিধায় রাত ১১ টায় আমার দোকান ভাঙছে আমি এর বিচার চাই।
এ বিষয়ে সিড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল হাদী জিল্লু বলেন,আমি কোন দোকানপাট ভাঙ্গিনি আমার বিরুদ্ধে তারা ষড়যন্ত্র করে এসব অভিযোগ দিচ্ছেন। আর তাদের সরকারি জায়গায় দোকান ছিল।
Spread the love

পাঠক আপনার মতামত দিন