শরীয়তপুরে চাদার টাকা না পেয়ে শিক্ষিকার স্বামীর হাত ভেঙ্গে দিলো সন্ত্রাসীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার তালিক্কা কান্দি গ্রামের প্রাইমারী শিক্ষিকা মাহমুদা বেগমের স্বামী নুরুল আমিন মাঝির কাছে চাদা না পেয়ে তার হাত ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

গত ১৫ এপ্রিল সরজমিনে গিয়ে কথা হয় নুরুল আমিন মাঝির স্ত্রী মাহমুদা বেগমের সাথে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন,আক্তার সরকার, খোকা সরকার,শাহজালাল সরকার গং চাদার টাকা না পেয়ে আমার স্বামীকে মেরে হাত  ভেঙ্গে দিয়েছে।  

 

আমি একজন সহজ , সরল , আইন মান্যকারী লােক । অপরপক্ষে আক্তার সরকার গং গােয়ার , হারমাদ , লাঠিয়াল , জুলুমবাজ , চাঁদাবাজ , সন্ত্রাসী এবং আইন অমান্যকারী লােক  । আক্তার সরকার বিভিন্ন সময়ে আমার নিকট চাদা দাবী করিয়া আসিতে থাকে । ১ ম ঘটনার তারিখে অর্থাৎ ২২ / ০৮ / ২০২০ ইং সকাল অনুমান ১০.০০ ঘটিকায় আমি আমার স্বত্ব দখলীয় বসত বাড়ীতে বিল্ডিং নির্মাণের কাজ শুরু করিলে আক্তার সরকার  আমার বসত বাড়ীতে অনধিকার প্রবেশ করিয়া আমার নিকট ৫,০০,০০০ / – ( পাঁচ লক্ষ ) টাকা চাঁদা দাবী করে । আমি তাদের দাবীকৃত ৫,০০,০০০ / – ( পাঁচ লক্ষ ) টাকা চাঁদা দিতে অস্বীকার করিলে একপর্যায়ে আক্তার সরকারের সাথে আমার কথা কাটাকাটি হয় । তখন আক্তার সরকার আমাকে এলােপাথারী ভাবে কিল , ঘুষি মারিয়া মাটিতে ফেলে দেয় । আমি ডাক – চিৎকার দিলে আমার স্বামী আমাকে রক্ষা করার জন্য দৌড়াইয়া আসিলে সকল আসামীগণ চাঁদার দাবীতে তাদের হাতে থাকা লাঠি দিয়া এলােপাথালী ভাবে পিটাইয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলাফুলা জখম করে । উক্ত মারপিটের সময়ে আক্তার সরকার আমার গলায় থাকা ০১ ( এক ) ভরি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন মূল্য অনুমান ৭০,০০০ / – ( সত্তর হাজার ) টাকা এবং আমার কানে থাকা ০৮ ( আট ) আনা ওজনের স্বর্ণের দুল মূল্য অনুমান ৩৫,০০০ / – ( পয়ত্রিশ হাজার ) টাকা খোকা সরকার ছিড়ে নিয়া যায় এবং যাওয়ার সময় আমাসীগণ আমাকে ও আমার স্বামীকে বিভিন্ন ভীতি ও হুমকি ধামকি প্রদর্শন করে। 

 

এরই ধারাবাহিকতায় বর্ণিত ২ য় ঘটনার দিন , তারিখ ও সময়ে অর্থাৎ ২৮/০৩/২০২১ ইং মােতাবেক ১৪ ই চৈত্র ১৪২৭ বাংলা রােজ রবিবার বিকাল অনুমান ৩.০০ ঘটিকার সময়ে অমর স্বামী নুরুল আমিন মাঝি সখিপুর বাজারে কৃষি ব্যাংকের লেনদেন শেষ করিয়া সিড়ি নিচে নামলে সকল আসামীগণ পূর্ব শত্রুতার জের ধরিয়া অতর্কিত ভাবে তাহার উপর হামলা করে এক আক্তার সরকারের হাতে থাকা লােহার রড দিয়া খুন করার উদ্দেশ্যে আমার স্বামীর মাথা লক্ষ্য করি ৰারি মারিলে আমার স্বামী উক্ত বারি বাম হাত দিয়া ফিরাইলে তাহার বাম হাতের কনুই , হতে ফেটে যায় । অতঃপর আক্তার সরকার,খোকা সরকার, শাহাজালাল সরকার,আলী হাওলাদার, আলীসলাম ফকির,কবির মিজি,চাঁদার দাবীতে গাছের ডাল ও বলে পিয়া আমার স্বামীকে এলােপাথারী ভাবে পিটাইয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলাফুলা জখম করে এক ১ নং আসামী বলে যে , তােদের নিকট আগে ৫,০০,০০০ / – ( পাঁচ লক্ষ ) টাকা চাঁদা চাইছি তা সেস নাই , এখন তুই যদি আমাদেরকে ৫,০০,০০০ / – ( পাঁচ লক্ষ ) টাকা চাঁদা না দিস তাহলে তােকে আজ প্রাণে শেষ করিয়া ফেলিব । আমার স্বামীর ডাকচিৎকারে লােকজন আসিলে আমার স্বামীকে গুরুতর আহত অবস্থায় সখিপুর বাজারে অবস্থিত কৃষি ব্যাংকের নীচে ফেলে রেখে চলিয়া যায় । আমি সংবাদ পাইয়া সাক্ষীদের সহায়তায় আমার স্বামীকে দ্রুত শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আনিয়া ভর্তি করি এবং বর্তমানে আমার স্বামী শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে । উক্ত বিষয় নিয়া সখিপুর থানায় মামলা করিতে গেলে সং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামলা গ্রহণ না করিয়া বিজ্ঞ আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন ঘটনার সাক্ষী প্রমান আছে । অতপর আমি শরীয়াতপুর কোর্টে মামলা করি, মামলা নং৮৩/২০২১ 

আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।   

 

এব্যাপারে অভিযুক্ত আক্তার সরকার বলেন,এ ঘটনা সম্পুর্ন মিথ্যা বানোয়াট, আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য করা হয়েছে।আমি এর সাথে জড়িত না।

Spread the love

পাঠক আপনার মতামত দিন