নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে রংধনু গ্রুপের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ

নিউজ২৪লাইন:

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দেশের অন্যতম শিল্পগোষ্ঠী রংধনু গ্রুপের উদ্যোগে মহামারী করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত, অসহায় দরিদ্র ৫ হাজার মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়াস্থ্য চেয়ারম্যানের অস্থায়ী কার্যালয়ে এসব খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা বিতরণ করেন রংধনু গ্রুপ ও কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের আলহাজ্ব মো. রফিকুল ইসলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রংধনু গ্রুপের পরিচালক ও আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রত্যাশী মিজানুর রহমান, কায়েতপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুল আলম খান, সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল আউয়াল, আওয়ামীলীগ নেতা করিম পাঠান, হাজী আলাউদ্দিন, আলতাফ হোসেন, তারিকুল ইসলাম, আলী আজগর, উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক মিলন, কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ভূইয়া, যুবলীগ নেতা হাজী সফিকুল ইসলাম, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মহিউদ্দিন ব্যাপারী, ছাত্রলীগ নেতা লুৎফর রহমান মুন্না, আশফাকুল ইসলাম তুষার, আশরাফুল আলম ভুইয়া জেমিন, মহিলালীগ নেত্রী স্বপ্না আক্তার, ইয়াছমীন আক্তার প্রমুখ।

খাদ্য সামগ্রীর মাঝে ছিল চাল, আটা, তেল, চিনি, আলু, পেয়াজ ও ডাল।

সামগ্রী ও টাকা বিতরণকালে আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম বলেন, মহামারী করোনার শুরু থেকে অদ্যাবধি রূপগঞ্জের প্রতিটি পাড়া মহল্লায় রংধনু গ্রুপের সহায়তা পৌছে দেয়া হয়েছে। উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ ধাপে ধাপে রংধনু গ্রুপের পক্ষ থেকে নগদ টাকা, খাদ্য সামগ্রী, পরিধেয় বস্ত্র পেয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় এই খাদ্য সহায়তা ও নগদ টাকা প্রদান করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, যে কোন ধর্মীয় উৎসব, প্রাকৃতিক দূর্যোগ আর অভাবী মানুষের পাশে রংধনু গ্রুপ ছিল আছে এবং থাকবে। তিনি আরও বলেন, রূপগঞ্জের সন্তান হিসেবে আল্লাহ আমাকে যতোদিন সুস্থ্য রাখেন ততোদিন কায়েতপাড়া তথা রূপগঞ্জের একটি পরিবারও অনাহারে দিন কাটাবে না।

ওমরা করতে যাওয়া বিশ্বকাপ স্কোয়াডের ক্রিকেটাররা হলেন- তাসকিন আহমেদ, নুরুল হাসান সোহান, আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ নাঈম শেখ ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ওমরাহ শেষে আগামী ২১ তারিখ ফেরার টিকিট নিশ্চিত করে দেশ ছেড়েছেন তারা।

এই পাঁচ ক্রিকেটারের বাইরে তাদের সঙ্গে আরও দুই ক্রিকেটার ওমরাহ করতে যাবেন। তারা হলেন- তাইজুল ইসলাম ও উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান। এই ৭ ক্রিকেটারের সঙ্গী হবেন পেসার তাসকিন আহমেদের বাবা আব্দুর রশিদ।

এরপর দেশে ফিরে পরিবারের সঙ্গে কিছুদিন সময় কাটানোর সুযোগ পাবেন বিশ্বকাপে ডাক পাওয়া ক্রিকেটাররা। ছুটি শেষ হলে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে নেমে পড়তে হবে। যদিও দেশে আনুষ্ঠানিক অনুশীলনের সূচি রাখেনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। ৪ অক্টোবর ওমানে গিয়ে সেখানে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করবেন সাকিব আল হাসান-মাহমুদউল্লাহ রিয়াদরা।

Spread the love

পাঠক আপনার মতামত দিন