বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়াম লিগ (বিপিএল) এর পর্দা উঠবে আজ

নিউজ২৪লাইন:
বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) শুরু হচ্ছে আজ। মেহেদি মিরাজের চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এবং সাকিব আল হাসানের ফরচুন বরিশালের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে দুপুর দেড়টায় পর্দা উঠবে টুর্নামেন্টের অষ্টম আসরের। দিনের অন্য ম্যাচে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় খেলবে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা ও খুলনা টাইগার্স। বাকি দুই দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও সিলেট সানরাইজার্স মুখোমুখি হবে পরদিন দুপুর সাড়ে ১২টায়।

বিপিএলের প্রথম দিনের দুই ম্যাচের চার দলের ক্রিকেটারে ভরপুর। বাহারি রঙের জার্সিতে ব্যাট বলের উৎসবের আমেজ। বিদেশী নামীদামী তারকারা এখনও না আসায়, দেশী তারকায় উত্তাপ ছড়াচ্ছে অষ্টম আসর। মাশরাফী ইনজুরিতে থাকায়, প্রথম দিনেরই মাঠে নামছে বাকি চার পান্ডব। তাড়াহুড় করে বিপিএলের আয়োজন, যথেষ্ট প্রস্তুতি আর কম্বিনেশন নিয়ে মাঠে নামতে পারছে না দলগুলো।

ঢাকায় পাঁচ দিনে ৮টি ম্যাচ শেষে ২৮ জানুয়ারি থেকে ১ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে হবে ৮ ম্যাচ। এরপর ৩ ও ৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় আবার হবে চার ম্যাচ। ৭-১২ ফেব্রুয়ারি সিলেটে হবে রাউন্ড রবিনের বাকি ১০ ম্যাচ। ৩০ ম্যাচের প্রথম পর্বের শীর্ষ দু’দল ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় মিরপুরে খেলবে প্রথম কোয়ালিফায়ার। সেদিন দুপুরে হবে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানীয় দলের মধ্যে এলিমিনেটর। এই ম্যাচের জয়ী ও প্রথম কোয়ালিফায়ারের পরাজিত দল দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার খেলবে ১৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায়। ১৮ ফেব্রুয়ারি ফাইনাল।

অবশেষে গর্ভের সন্তানের পিতৃপরিচয় খুজে বেড়াচ্ছে : তামিমা

নিউজ২৪লাইন:

অবশেষে ক্রিকেটার নাসিরের কথিত স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাস্মী তার গর্ভের সন্তানের  পিতৃপরিচয় এর জন্য চিন্তিত হয়ে পড়ছেন আদালতের কাছে

আইনসম্মতভাবে বিচ্ছেদের আগেই নতুন করে বিয়ের মামলায় ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তার স্ত্রী সৌদি এয়ারলাইনসের কেবিন ক্রু তামিমা সুলতানা তাম্মীসহ তিনজনের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। অন্য আসামি হলেন তামিমার মা সুমি আক্তার। তবে মামলার শুনানিতে তাম্মি দাবি করেছেন, আমি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা, আমার গর্ভে থাকা সন্তান নাসির হোসেনের ঔরসজাত সন্তান। তিনি শঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, আজ যদি এই বিয়ের বৈধতা না দেওয়া হয়, তাহলে আমার অনাগত সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। এই নিষ্পাপ শিশু পৃথিবীর আলো দেখার পর তার দিকে সমাজ আঙুল তুলবে।

 

তামিমা তার অন্তঃসত্ত্বার প্রমাণ হিসেবে কিছু মেডিকেল রিপোর্টের কাগজপত্র আদালতে উপস্থাপন করেন। তবে আদালত এ বিষয়ে কোনো প্রমাণ দেখতে বা শুনতে রাজি হয়নি। বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) জানায়, ঢাকার অ্যাডিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন সোমবার তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। শুনানি শেষে ঢাকার অ্যাডিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন তাদের জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দেন। তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসানের করা মামলায় জামিন পেলেন তারা।

 

 

বালিশ নিয়ে ঢাকায় এসেছেন রিজওয়ান

নিউজ২৪লাইন:
প্রত্যাশা পূরণের পথে থাকলে আজ তাদের ব্যস্ত থাকার কথা ছিল দুবাইয়ে বিশ্বকাপ ফাইনালের প্রস্তুতি নিয়ে। কিন্তু সেমি-ফাইনালে বদলে গেছে গতিপথ। বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়ে ফাইনালের আগের দিন পাকিস্তান দল চলে এলো ঢাকায়। এবার তাদের অভিযান, বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ।

বিমানবন্দরে পাকিস্তান দলের দলের তোলা কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুরছে। সেই ছবিগুলোতে দেখা যাচ্ছে একটি সাদা কাপড়ে মোড়ানো বালিশ দুই হাত দিয়ে বুকে জড়িয়ে হাঁটছেন রিজওয়ান। বোলারদের ঘুম কেড়ে নেওয়া সেই রিজওয়ান বাংলাদেশে নিয়ে এসেছেন একটি বালিশ!

বিমান কিংবা বাসে আরামে বসার জন্য এই বালিশ, না রাতে ঘুমানোর সময় মাথার নিচে দেওয়ার জন্য—তা অবশ্য জানা যায়নি। তবে এক পাকিস্তানি সাংবাদিক একবার জানিয়েছিলেন, মোহাম্মদ হাফিজ ও রিজওয়ান সফরে যাওয়ার সময় নিজেদের বালিশ সঙ্গে নিয়ে যান।

ক্রিকেটার-সাপোর্ট স্টাফ মিলিয়ে ২৭ জনের বহর বিমানবন্দর থেকে পৌঁছে গেছে হোটেলে। সেখানে কোভিড পরীক্ষা শেষে আজকের দিনটিই কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তাদের। সবাই নেগেটিভ হলে রোববার থেকেই শুরু করতে পারবেন অনুশীলন।

আফগানিস্তানের কাছ থেকে ম্যাচ ‘কিনেছে’ ভারত: পাক অভিনেত্রী

নিউজ২৪লাইন:
আফগানিস্তানের বিপক্ষে বিশাল জয়েও স্বস্তিতে নেই ভারত। একদিকে তাদের টিকে থাকা এখনও কঠিন। এ পরিস্থিতিতে শুক্রবার স্কটল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ভারত।

এই ম্যাচ বিরাট কোহলিদের বিশাল বড় ব্যবধানে জিততে হবে। প্রতিটা ম্যাচই এখন কোহলিদের জন্য ‘ডু ওর ডাই’ ম্যাচ।

অন্যদিকে আফগানদের বিপক্ষে জয়টা প্রশ্নবিদ্ধ পাকিস্তান সমর্থকদের কাছে। তাদের দাবি, ভারত-আফগানিস্তান ম্যাচ পাতানো ছিল। যদিও এমন দাবির পক্ষে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি এখনও।

তবে পাক সমর্থকরা বলছেন, স্কটল্যান্ডকে গুঁড়িয়ে দিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে দারুণ লড়াই করে হেরেছে আফগানিস্তান। এর পর নামিবিয়াকে উড়িয়ে দিয়েছে মোহাম্মদ নবিরা। কিন্তু এর পর ভারতের মুখোমুখি হতেই গোটা দলটি যেন খেলাই ভুলে গেল। উল্টো চিত্র ছিল ভারতীয় দলে। শুরু থেকে ছন্নছাড়া। পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে গোহারা হারের পর বিরাট কোহলিরা যেন ফর্ম ফিরে পেলেন আফগানদের সামনে পেয়েই। পাড়ার ক্রিকেটারদের মতো পিটিয়ে ছাতু বানালেন।

কিছু কিছু পাক সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে দাবি করা হচ্ছে, আফগান বোর্ডের সঙ্গে ম্যাচ ফিক্সিং করেছে বিসিসিআই। ক্রিকেটের মতো ভদ্রলোকের খেলাকে নষ্ট করছে ভারতীয় বোর্ড।

এ তালিকায় নাম লিখিয়েছেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী সেহার শিনওয়ারিও। তিনি টুইট করেছেন, ‘বিসিসিআই দারুণ একটা ম্যাচ কিনে নিয়েছে।’

পাক এই অভিনেত্রী তার টুইট দেখে ক্ষুব্ধ ভারতের সাবেক ক্রিকেটার ও বিশ্লেষক আকাশ চোপড়া।

অভিনেত্রীর টুইটটি রিটুইট করে আকাশ চোপড়া খোঁচা দিয়েছেন— ‘যাদের মস্তিষ্ক বন্ধ, তারা যদি মুখটাও বন্ধ রাখত!’

তথ্যসূত্র: টুইটার, নিউজ এইটিন

‘অযোগ্য’ পাপনের ‘নির্লজ্জ’ বোর্ডকে সম্মোধন করে নতুন বার্তা দিলেন সাবের হোসেন

নিউজ২৪লাইন:
সুপার টুয়েলভে টানা পাঁচ ম্যাচ হেরে চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়ে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। তবে বাংলাদেশের ছন্নছাড়া ব্যাটিং চোখে পড়েছে সারাবিশ্বের।

তাতে হতাশাজনক মন্তব্য ছাড়া অন্য কিছুই ছিল না। বড় স্বপ্ন নিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে গিয়েছিল বাংলাদেশ। সাম্প্রতিক ফর্মের বিচারে সেমিফাইনাল তো বটেই, চ্যাম্পিয়ন হওয়ারও সামর্থ্য রাখে টাইগাররা, এমনটা মনে করছিলেন অনেকে।

কিন্তু বিশ্বকাপের মূল আসরে গিয়ে দেখা গেলো উল্টো চিত্র। দেশকে অবিশ্বাস্য কিছু এনে দেওয়া তো দূরে, নিজেদের সামর্থ্যটুকুও দেখাতে পারলেন না মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকরা।

সুপার টুয়েলভের ৫ ম্যাচের ৫টিই হেরেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। শ্রীলঙ্কা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কিছুটা প্রতিরোধ গড়া গেলেও ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা আর অস্ট্রেলিয়ার সামনে দাঁড়াতেই পারেনি টাইগাররা৷

বিশ্বকাপ মিশনের শেষ ম্যাচে অজিদের বিপক্ষে তো হারার সাথে সাথে এক লজ্জাজনক রেকর্ডেরও জন্ম দিয়েছেন তারা৷ আর দলের এই বাজে অবস্থার দায়ভার বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনের কাঁধেই দিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বিসিবির সভাপতি ছিলেন সাবের হোসেন। তার সময়েই ২০০০ সালের জুন মাসে বাংলাদেশ আইসিসির পূর্ণ সদস্য পদ এবং টেস্ট স্ট্যাটাস পায়।
নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে পাপন ও তার বোর্ডকে রীতিমত ধুয়ে দিয়েছেন তিনি। সাবের হোসেন লিখেছেন, ‘জনাব পাপনের অধীনে বাংলাদেশ ৪টা বিশ্বকাপ খেলে ফেললো। দিনকে দিন অবস্থা খারাপ থেকে আরও খারাপ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি সময় ধরে থাকা বিসিবির সভাপতি সবচেয়ে অযোগ্যও বটে।’

বিসিবির সাবেক সভাপতি যোগ করেন, ‘দোষটা সবসময় অন্য কারো হয়, কিন্তু তিনিই আমাদের ক্রিকেটটাকে মাটিতে নামিয়েছেন। লজ্জা লাগে যে আমাদের এমন একটা নির্লজ্জ ক্রিকেট বোর্ড রয়েছে।’

পাড়া-মহল্লার তৃতীয় শ্রেণির ক্রিকেটারও বাংলাদেশ দলের থেকে ভালো ব্যাটিং করে : মার্ক ওয়াহ

নিউজ২৪লাইল:
গত দুই তিন দিন ধরে অনেকের মনে একটি প্রশ্ন আসছে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে কেন খেলতে গিয়েছিল? ম্যাচ জিততে, নাকি শুধুই অংশগ্রহণ করতে? পারফরম্যান্স বিবেচনায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবচেয়ে জঘন্য ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ।

বিশেষ করে বাংলাদেশের ব্যাটিং দেখে মনে হয়েছে কোন পাড়ার ক্রিকেট দলকে বিশ্বকাপে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। ঠিক সেটাই মনে করলেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ওপেনার মার্ক ওয়াহ। বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানদেরকে তিনি পার্কের তৃতীয় শ্রেণীর ক্রিকেটের সাথে তুলনা করেছেন।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের সর্বোচ্চ স্টাইকরেট মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। ৮ ইনিংসে ১৬৯ রান, গড় ২৮.১৬, স্ট্রাইক রেট ১২০.৭১। এছাড়াও ৩ ওপেনার লিটন দাসের স্ট্রাইক রেট ৯৪, নাঈম শেখের ১১০ এবং সৌম্য সরকারের ১০০। তাইতো বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদেরকে নিয়ে এমন মন্তব্য করেছেন অস্ট্রেলিয়ার এই সাবেক ক্রিকেটার।

ফক্স ক্রিকেটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ওয়াহ বলেন, ‘এটি একটি জঘন্য ব্যাটিং পারফরম্যান্স ছিল। আমি জানি অস্ট্রেলিয়া ভালো বল করেছে, কিন্তু তাই বলে বাংলাদেশের ব্যাটিং দেখেও আন্তর্জাতিক মানের মনে হয়নি। বিষয়টি লজ্জাজনক। এমন মানের ব্যাটিং আপনি পার্কের তৃতীয় শ্রেণির ক্রিকেটেও দেখতে পাবেন না। ব্যাটিং থেকে কোনো সাহায্যই পায়নি বাংলাদেশ।’

লিটন কেন বাংলাদেশ দলে, বুঝতে পারছেন না ওয়াসিম আকরাম

নিউজ২৪লাইন:
ফর্মটা ভালো যাচ্ছে না লিটন দাসের। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত কোনো বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। ওদিকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দুটি সহজ ক্যাচ ফেলেছেন, যে ক্যাচগুলো হাতে আটকে থাকলেই বাংলাদেশ হয়তো জয় দিয়ে সুপার টুয়েলভ পর্ব শুরু করতে পারত।

এমন অবস্থায় দলে লিটন দাসের অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন ওঠাটাই স্বাভাবিক। কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরামও লিটনকে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এত বাজে ফর্মে থাকা লিটন কীভাবে বাংলাদেশ দলে সুযোগ পাচ্ছেন, সেটা মাথায় ঢুকছে না বাঁহাতি পেস বোলিংয়ের শেষ কথার।

বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপে তিন ওপেনার নিয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের সঙ্গে ব্যর্থতায় বাদ দেওয়া হয়েছে সৌম্য সরকারকে। তাঁর জায়গায় দলে ঢুকে মোহাম্মদ নাঈম দুটি পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংস খেলেছেন। তাঁর ব্যাটিং টি-টোয়েন্টিতে আদর্শ কি না, এ নিয়ে বিতর্ক হতে পারে; তবে এক প্রান্ত ধরে রাখার কাজটা ভালোই করছেন নাঈম।

একজন ওপেনার যখন এক প্রান্ত ধরে রাখেন, অন্য প্রান্তে রানের গতি বাড়ানোর দায়িত্বটা বাড়ে। সে কাজ লিটন ভালোই পারেন। কিন্তু লিটন নিজেই যাচ্ছেন চরম ফর্মহীনতার মধ্য দিয়ে। বিশ্বকাপের প্রস্তুতি পর্বে ওমান একাদশের বিরুদ্ধে ৫৩ রান করে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু পরের দুই প্রস্তুতি ম্যাচেই আবার ব্যর্থ। শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ১ রান করেছেন।

বিশ্বকাপেও ফর্মের দেখা পাননি লিটন। চার ম্যাচে করেছেন মাত্র ৫৬ রান। এর মধ্যেই আবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ফেলেছেন দুটি ক্যাচ। গত পরশু বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা ম্যাচ নিয়ে বিশ্লেষণ করতে গিয়ে লিটনকে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ওয়াসিম আকরাম। এ স্পোর্টস টিভির অনুষ্ঠান ‘দ্য প্যাভিলিয়ন’–এ কথা বলছিলেন ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনিস, মিসবাহ-উল-হক ও ওয়াহাব রিয়াজ। বাংলাদেশের হারের পেছনে লিটনের ওই ক্যাচ ফেলার দায়ই দেখছেন ওয়াসিম।

আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলা এক ক্রিকেটারকে কেন দলে রাখা হচ্ছে, এ নিয়েও প্রশ্ন রেখেছেন কিংবদন্তি, ‘বাছাইপর্বের (প্রথম পর্ব) শুরু থেকেই মনে হচ্ছে লিটন দাস ঘুমিয়ে আছে। সে বাছাইপর্বে রান পায়নি, ভালো ফিল্ডিং করছে না। আমি নিশ্চিত নই, সে কেন এখনো দলে আছে।’

এ বছর টি-টোয়েন্টিতে খুব বাজে ফর্মের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন লিটন। ১৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন। এর মধ্যে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নামা হয়নি তাঁর। অন্য ১২ ম্যাচে ১৩১ রান করেছেন। ১০.৯১ গড়ে করা এই রান এসেছে মাত্র ১০০.৭৬ স্ট্রাইক রেটে। এ বছর টি-টোয়েন্টিতে লিটনের কোনো অর্ধশতক নেই। সর্বোচ্চ ৩৩ রান করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।

২৪ অক্টোবর বাংলাদেশের হার যে ওয়াসিমকে অবাক করেছে, সেটাও বোঝা গেছে তাঁর বিশ্লেষণে, ‘আমার তো মনে হয়েছিল বাংলাদেশ ভালোই করেছে। ওরা যখন ১৭০–এর ওপর রান করেছে, সেটাও এই উইকেটে। শারজার উইকেট আমরা যা দেখেছি, এখানে রান কম হয়। আইপিএলেও কম রান হয়েছে। শ্রীলঙ্কার চার উইকেটও ফেলে দিয়েছিল। ৮০ রানে ৪ জনকে আউট হয়ে যাওয়ার পরও আসালাঙ্কা (চারিত) ও রাজাপক্ষে (ভানুকা) থামলই না। তারা মারতেই থাকল। ওরা যদি একটু থামত, তাহলে চাপ বাড়ত। কিন্তু ওরা প্রতিপক্ষের ওপর চাপ সৃষ্টি করল। অসাধারণ ইনিংস!’

1 2 3 45