যে কারণে থাকছে না পদ্মা সেতুতে সাইকেল ও পায়ে হাঁটার লেন

নিউজ ২৪ লাইন ঃ এস এম আবুল কালাম আজাদ”

পদ্মা সেতু।
দুর্ঘটনা ও নিরাপত্তার দিক বিবেচনায় পদ্মা সেতু পারাপারে সাইকেল ও পায়ে হেঁটে চলাচলের কোনো লেন রাখা হয়নি। তবে, সিএনজি চলতে দেওয়া হবে কিনা সে বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী আহমেদ আহসান উল্লাহ মজুমদার দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে দুই চাকার যানের মধ্যে শুধু মোটরসাইকেলের অনুমতি আছে। সাইকেল চলাচলের জন্য আলাদা লেন দরকার। যা ডিজাইন অনুযায়ী নেই। সাইকেল লেন না থাকার পেছনে নিরাপত্তার বিষয়টি জড়িত।’

তিনি আরও বলেন, ‘সড়কপথে পায়ে হেঁটে চলার সুযোগ নেই। রেলপথে শুধু রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীরা পায়ে হেঁটে চলাচল করতে পারবে। সেতুর এক নম্বর পিলার ও ৪২ নম্বর পিলারে ওঠা-নামার জন্য সিঁড়ি রাখা হবে, যা কেবল সেতু সংশ্লিষ্টদের কাজে ব্যবহৃত হবে।’

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী (সড়ক) সৈয়দ রজব আলী ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘অনেক দ্রুতগতিতে সেতুতে যানবাহন চলাচল করবে। যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে সাইকেল ও পায়ে হেঁটে চলাচলের লেন রাখা হয়নি। এটা যমুনা সেতুতেও নেই। তবে সেতু পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজে নিয়োজিতরা সেতুর উপরে যেতে পারবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘রিকশা-ভ্যানও সেতুতে চলাচল করবে না। সিএনজি চলবে কিনা এটি সরকারের সিদ্ধান্ত।’

‘পদ্মা সেতুর দুপ্রান্তে দুটি থানা স্থাপন করা হয়েছে। সেতুর উপর যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে তবে সিসি ক্যামেরার সহায়তায় তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কতটি সিসি ক্যামেরা স্থাপন হবে তা চূড়ান্ত হয়নি। আধুনিক প্রযুক্তির ক্যামেরাই স্থাপন কর হবে,’ তিনি যোগ করেন।

‘বিদিশার সন্তান নয় এরিক এরশাদ’! ঘোষণা করতে আদালতে মামলা

নিউজ ২৪ লইনঃ ঢাকাঃ সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিকের ‘সন্তান নয়’ শাহাতা জারাব এরশাদ (এরিক) মর্মে ঘোষণা করতে ঢাকা জেলা জজ আদালতে একটি মামলা করা হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কের ফ্ল্যাট নিয়ে সাবেক স্ত্রী বিদিশা ও তার ছেলে এরিকসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করা হয়েছে।

আজ সোমবার ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক কাজী মুশফিক মাহবুব রবিনের আদালতে জাতীয় পার্টির সাবেক হুইপ এইচ. এম গোলাম রেজা এবং তার স্ত্রী জিন্নাতুন নাহার শিমু মামলাটি দায়ের করেন।

আদালত মামলার বিষয়ে পরে আদেশ দেবেন বলে জানান সংশ্লিষ্ট আদালতের সেরেস্তাদার শাহাদাত হোসেন।

মামলার অপর বিবাদীরা হলেন এরিক ওয়েন হুইসন, আরমান এরশাদ, এরিক এরশাদ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, উপ-কমিশনার, স্পেশাল ব্রাঞ্চের এমিগ্রেশন পুলিশ সুপার (এসএম) ও গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

মামলায় বলা হয়, ২০২০ সালের ২১ আগস্ট ১ নম্বর বিবাদী বিদিশা সিদ্দিক সাবেক স্বামী এইচ এম এরশাদের নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও অবজ্ঞা করে প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসায় ওঠেন এবং ২ নম্বর বিবাদী এরিককে নিজের গর্ভজাত সন্তান হিসাবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে আসছেন। এ ছাড়া বাদী ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চালিয়ে আসছেন।

মামলার ১ নম্বর বিবাদী বিদিশা সিদ্দিক বারিধার প্রেসিডেন্ট পার্কের ফ্ল্যাটটি তার কথিত ছেলে ২ নম্বর বিবাদী এরিকের বলে দাবি করছেন এবং গত ৭ জুন ফ্ল্যাটটি বাদীকে খালি করে দেওয়ার জন্য বলেছেন। তাই ২ নম্বর এরিক এবং ১ নম্বর বিবাদী বিদিশা সিদ্দিকীর গর্ভজাত সন্তান নয় মর্মে এক ঘোষণামূলক রায় ও ডিক্রি প্রদান করা প্রয়োজন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

ইউটিউব দেখে হেলিকপ্টার বানিয়ে উড়াতে গিয়ে তরুণের মৃত্যু

নিউজ ২৪লাইনঃ
মাধ্যমিকের গণ্ডি না পেরেনো এক তরুণ ইউটিউব দেখে প্রাতিষ্ঠানিক কোনো শিক্ষা ছাড়াই নিজে নিজে হেলিকপ্টার বানিয়েছিলেন। সেই হেলিকপ্টার পরীক্ষামূলকভাবে উড়াতে গিয়ে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই মৃত্যু হলো তার।

ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির রাজ্য মহারাষ্ট্রের ফুলসাওয়াঙ্গি গ্রামের বাসিন্দা শেখ ইসমাইল নামে ২৪ বছর বয়সী ওই তরুণ ইউটিউব দেখে এক আসন বিশিষ্ট একটি প্রোটোটাইপ হেলিকপ্টার নির্মাণ করেন। অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ে স্কুল ছেড়ে দেয়া ইসমাইলের স্বপ্ন ছিল বিস্ময়কর কিছু করে তার গ্রামের সুনাম সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া। তাই তিনি নিজের ডাক নামের সাথে মিলিয়ে ‘মুন্না হেলিকপ্টার’ নির্মাণ করেন।

নিহত ইসমাইলের বন্ধু শচীন গণমাধ্যমকে জানান, থ্রি ইডিয়ট সিমেনার র‌্যাঞ্চো চরিত্র ভীষণ প্রভাবিত করে ইসমাইলকে। তাই তিনি অসাধারণ কিছু করার জন্য গ্রামে বসেই হেলিকপ্টার নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। পরে ইউটিউবে হেলিকপ্টার বানানোর বিভিন্ন ভিডিও দেখে নিজেই হেলিকপ্টার বানানো শুরু করেন ইসমাইল।

জানা গেছে, হেলিকপ্টারের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ সংগ্রহ করতে ইসমাইলের প্রায় দু’বছর লেগেছিল। স্টিলের পাইপ দিয়ে তিনি হেলিকপ্টারের পাখা বানান। মারুতি ৮০০ ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয় হেলিকপ্টারটি চালানোর জন্য। ইসমাইল চেয়েছিলেন ১৫ আগস্ট ভারতের স্বাধীনতা দিবসে পুরো গ্রামের উপর হেলিকপ্টার নিয়ে চক্কর দিতে। এজন্য গত ১০ আগস্ট তিনি বন্ধুদের সামনে হেলিকপ্টারটি পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন করেন।

কিন্তু হেলিকপ্টারের ইঞ্জিন চালু করার পরপরই হেলিকপ্টারের পেছনের লেজের অংশ খুলে হেলিকপ্টারের ওপরের পাখায় আঘাত করে। সেই স্টিলের পাখা ইসমাইলের গলায় আঘাত করলে সাথে সাথেই হেলিকপ্টার থেকে অচেতন হয়ে পড়ে যান তিনি।

বন্ধুরা তাকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

ধেয়ে আসছে একাধিক শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়।

জুনেই বঙ্গোপসাগরে একাধিক গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেইসঙ্গে রয়েছে শক্তিশালী কালবৈশাখী ঝড় হওয়ার আশঙ্কা। এছাড়া অতিভারী বৃষ্টিপাতের কারণে আকস্মিক বন্যার সম্ভাবনাও রয়েছে। পাশাপাশি মাঝারি মাত্রার দাবদাহ বয়ে যেতে পারে দেশের কয়েকটি অঞ্চলের ওপর দিয়ে।

আবাহওয়া অধিদফতরে গত এক মাসের আবহাওয়ার পর্যালোচনা এবং আগামী এক মাসের আবহাওয়ার পূর্বাভাস নিয়ে বুধবার (২ জুন) অনুষ্ঠিত বৈঠকে এসব তথ্য উঠে এসেছে। অধিদফতরের পরিচালক সামসুদ্দিন বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।
আবহাওয়া অধিদফতরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শ ম সজিব হোসেন জানান, প্রতিমাসের শুরুতে পরিচালকের সভাপতিত্বে বিশেষজ্ঞ কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সভায় জানানো হয়, মে মাসে স্বাভাবিক অপেক্ষা ২৬ দশমিক ৬ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। এটি সারা দেশের গড় হিসাব। কিন্তু রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি এবং খুলনা ও ময়মনসিংহ বিভাগে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হয়েছে।
জুন মাসের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এ মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মাসের শুরুতে সারাদেশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
প্রতি মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত পরিমাপ একেক বিভাগে একেক রকম হয়। জুনে ঢাকা বিভাগে ৩৫৬ মিলি., ময়মনসিংহে ৪৩২ মিলি., চট্টগ্রামে ৫৮৯ মিলি., সিলেটে ৬৩৪ মিলি, রংপুরে ৩৮৯ মিলি, খুলনাতে ২৯৬ মিলি, বরিশালে ৪৮৩ মিলি মিটার স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হিসেবে ধরা হয়েছে।
সভায় জানানো হয়, এ মাসে বঙ্গোপসাগরে দুটি লঘুচাপ তৈরি হতে পারে। এর মধ্যে একটি নিম্নচাপ অথবা গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। উত্তর-মধ্য অঞ্চলে দুই থেকে তিনদিন মাঝারি অথবা তীব্র বজ্রঝড় ও দেশের অন্যান্য জায়গায় তিন থেকে চারদিন হালকা অথবা মাঝারি বজ্রঝড় হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে। এ মাসে একটি মৃদু অর্থাৎ ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের অথবা মাঝারি ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রির দাবদাহ বয়ে যেতে পারে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ‘ছায়াশূন্য’ পবিত্র কাবা শরীফ

জেদ্দা অ্যাস্ট্রোনোমিক্যাল সোসাইটি জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার(২৭ মে) দুপুর নাগাদ মক্কার পবিত্র কাবা শরীফের সঙ্গে সরাসরি একই লাইনে অবস্থান করবে সূর্য। সূর্যের কেন্দ্রবিন্দুটি এই কাবার ঠিক ওপরে উঠে আসবে। মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম জানায়, জেদ্দা অ্যাস্ট্রোনোমিক্যাল সোসাইটি এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

তারা জানায়, , মক্কানগরীতে বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা ৩৮ মিনিটে সূর্যোদয় হবে। উত্তরপূর্ব দিকটি থেকে সূর্য ধীরে ধীরে উপরে উঠতে শুরু করবে এবং দূপুর ১২টা ১৮ মিনিটে তা ঠিক কাবা শরীফের মাথার ওপর উঠে আসবে। আর সে কারণে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য হলেও পবিত্র এই মসজিদ ঘরের কোনো দিকে কোনো ছায়া থাকবে না।

ঘণ্টায় ১৫৫ কিমি বেগে বালেশ্বরে আছড়ে পড়ল অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- স্থলভাগে আছড়ে পড়ল অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ বুধবার সকাল ৯টা ১৫ মিনিটের বুলেটিনে জানিয়েছে, ওড়িশার বালেশ্বরের দক্ষিণে ইয়াস-এর স্থলভাগে আছড়ে পড়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এই মুহূর্তে ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রের গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ থেকে ১৪০ কিলোমিটার, সর্বোচ্চ ১৫৫ কিলোমিটার।। আগামী ৩ ঘণ্টা ধরে এই প্রক্রিয়া চলবে বলেই জানিয়েছে মৌসম ভবন।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়, এই মুহূর্তে ধামরা থেকে ৪৫ কিলোমিটার পূর্ব উত্তর-পূর্ব, দিঘা থেকে ৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ দক্ষিণ-পশ্চিম ও বালেশ্বর থেকে ৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থান করছে ইয়াস-এর চোখ।

আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, গত ৬ ঘণ্টা ধরে ঘণ্টায় ১৭ কিলোমিটার গতিবেগে এগোচ্ছে ইয়াস। বুধবার দুপুরের মধ্যে অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় রূপে ইয়াস ওড়িশার পারাদ্বীপ ও পশ্চিমবঙ্গের সাগর দ্বীপের মধ্যে ওড়িশার বালেশ্বরের দক্ষিণ ও ধামরার উত্তর দিক দিয়ে অতিক্রম করে যাবে বলেই পূর্বাভাস। তার পর ঘূর্ণিঝড় চলে যাবে ঝাড়খণ্ডের দিকে।

এদিকে, বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোর মধ্যে বাগেরহাটের মোংলা সমুদ্রবন্দরের সবচেয়ে কাছে রয়েছে ঘূর্ণিঝড়টি। মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছে ইয়াস।

বুধবার (২৬ মে) সকালে ইয়াস সম্পর্কিত ১৫ নম্বর বিশেষ বুলেটিনে এসব তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

তাতে বলা হয়েছে, অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আজ ভোররাত ৩টায় (২৬ মে) চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫১৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫০৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকট সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া আকারে ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে।

বন্ধ হচ্ছেনা মেসেন্জার”গ্রুপচ্যাট”।

সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকের কোনো গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে যোগাযোগ (গ্রুপ চ্যাট) সেবা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে ম্যাসেঞ্জারে গ্রুপ চ্যাটে কোনো পরিবর্তন আসছে না।

ফেসবুকের কমিউনিটি ব্লগে গত শুক্রবার (১৬ আগস্ট) প্রকাশিত বার্তায় এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে চ্যাট করার সুবিধাটি প্রায় এক বছর আগে চালু করেছিল ফেসবুক। কিন্তু আগামী বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) থেকে এই সেবাটি বন্ধ করে দেয়া হবে।

তবে, ইতিমধ্যে যেসব চ্যাট হয়েছে সেগুলো ব্যবহারকারীরা দেখতে পাবেন। ওই গ্রুপ চ্যাটে নতুন কোনো সদস্য যুক্ত করা যাবে না এবং নতুন কোনো মেসেজও পাঠানো যাবে না।

ফেসবুক গ্রুপের সদস্যদের মধ্যে চ্যাটের এই সুবিধা বন্ধ করা হলেও ম্যাসেঞ্জারে গ্রুপ চ্যাটে কোনো পরিবর্তন আসছে না।

এ বিষয়ে ফেসবুকের বার্তায় বলা হয়েছে, ম্যাসেঞ্জারে আগে যেভাবে গ্রুপ চ্যাট করা যেত সেভাবেই ব্যবহার করা যাবে। সেখানে ফেসবুক বন্ধু বা বন্ধু নয় এমন যে কেউ ম্যাসেঞ্জারে গ্রুপ চ্যাটে আগের মতোই যুক্ত হতে ও চ্যাট করতে পারবেন।

1 2 3 4