পহেলা মে উপলক্ষে আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের বানী

আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সভাপতি জনাব মোঃ আজিজুল হাকিম রিপন বাণীঃ

 

করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে এসেছে এবারের মে দিবস, যখন সংক্রমণ এড়াতে শ্রমজীবী মানুষকে থাকতে হচ্ছে কর্মহীন, ঘরবন্দি অবস্থায়।

ধৈর্য্য আর সাহসের সঙ্গে সবাইকে এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সভাপতি জনাব মোঃ আজিজুল হাকিম রিপন। সরকারের পাশাপাশি শিল্প-প্রতিষ্ঠানের মালিকদেরও তিনি শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলেছেন।

‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, সোনার বাংলা গড়ে তুলি’ – এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে শনিবার দেশে মে দিবস পালিত হচ্ছে বাংলাদেশে।

আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগ প্রতি বছর নানা আয়োজনের মধ্যে দিনটি পালন করলেও এবার পরিস্থিতি ভিন্ন।

ভাইরাসের বিস্তার রোধে অন্য অনেক আয়োজনের মত মে দিবসের সব আনুষ্ঠানিকতাও এবার খুব ছোট করা হয়েছে। জনসমাগম হয়- এমন কর্মসূচি না নিতে শ্রমিক সংগঠনগুলোকে অনুরোধ করেছেন আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সভাপতি জনাব মোঃ আজিজুল হাকিম রিপন।

১৮৮৬ সালের ১ মে আমেরিকার শিকাগো শহরে হে মার্কেটের শ্রমিকরা শ্রমের ন্যায্য মূল্য এবং আট ঘণ্টা কাজের সময় নির্ধারণ করার দাবিতে ধর্মঘট শুরু করেছিল। সেই আন্দোলন দমনে শ্রমিকদের ওপর গুলি চালানো হয়। ১০ শ্রমিকের আত্মত্যাগে গড়ে ওঠে বিক্ষোভ। প্রবল জনমতের মুখে যুক্তরাষ্ট্র সরকার শ্রমিকদের আট ঘণ্টা কাজের সময় নির্ধারণ করতে বাধ্য হয়।

১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই ফ্রান্সের প্যারিসে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে শিকাগোর শ্রমিকদের সংগ্রামী ঐক্যের অর্জনকে স্বীকৃতি দিয়ে ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস ঘোষণা করা হয়। ১৮৯০ সাল থেকে সারাবিশ্বে শ্রমিক সংহতির আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে মে মাসের ১ তারিখে ‘মে দিবস’ পালিত হচ্ছে।

এবারের মে দিবসের আগে ‘শ্রমজীবী মেহনতি ভাই বোনদের’ শুভেচ্ছা জানিয়ে আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সভাপতি জনাব মোঃ আজিজুল হাকিম রিপন নবভাবনা২৪ডটকম কে এক বার্তায় বলেছেন, “করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। কোনো প্রকার আনুষ্ঠানিকতার চেয়ে শ্রমিকদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি সবার আগে।”

নতুন এই করোনাভাইরাস অত্যন্ত ছোঁয়াচে বলে সব ধরনের জনসমাগম এড়িয়ে সবাইকে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্বের নিয়ম মেনে অন্তত তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হচ্ছে।

এই সঙ্কটে গভীর অনিশ্চয়তায় পড়েছে বিশ্বের মেহনতি মানুষ। কর্মীসংখ্যা বিশ্বের মোট শ্রমশক্তির প্রায় অর্ধেক।

বাংলাদেশ সরকার এই সঙ্কট মোকাবেলায় সময়ে কাওকে যেন চাকরিচ্যুত করা না হয়, সে বিষয়েও সতর্ক করা হয়েছে।

 

আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃ আলমাস হাওলাদার মিন্টু বাণীঃ

মে দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল শ্রমজীবী মানুষকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন আওয়ামী মটর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃ আলমাস হাওলাদার মিন্টু।

এক বাণীতে তিনি বলেছেন, মে দিবস সারা বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের ঐক্য ও সংহতির মহান প্রতীক। শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষই দেশের উন্নয়নের প্রধান চালিকাশক্তি। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্যেই নিহিত রয়েছে দেশের সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন।

দেশের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে শ্রমজীবী মানুষের ভূমিকা ও শ্রমিকদের নিরাপত্তাসহ শ্রমিকের স্বাস্থ্যসম্মত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা সাধারণ সম্পাদক তার বাণীতে তুলে ধরেছেন।

তিনি বলেন, “সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজীবন মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য সংগ্রাম করেছেন। … বঙ্গবন্ধু সেই স্বপ্ন পূরণে শ্রমজীবী মানুষের কল্যাণে সবাইকে দলমত নির্বিশেষে একাত্ম হতে হবে। এই অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনে শ্রমিক-মালিক সম্প্রীতি দেশের উন্নয়নের পথকে ত্বরান্বিত করবে বলে আমার বিশ্বাস।”

সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভয়াল থাবা আঘাত হেনেছে। এর ফলে গভীর সঙ্কটে পড়েছে শিল্প-প্রতিষ্ঠানসহ দেশের শ্রমজীবী মেহনতি মানুষ।

“এ পরিস্থিতিতে সরকার জনগণের পাশে থেকে ত্রাণকাজ পরিচালনাসহ সর্বাত্মক কাযক্রম নিয়েছে। আমি সরকারের পাশাপাশি শিল্প-প্রতিষ্ঠানের মালিকগণকেও শ্রমজীবী মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।”

সংক্রমণ প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতেও সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সাধারণ সম্পাদক বলেন, “এ সঙ্কট শীঘ্রই কেটে যাবে, ইনশাআল্লাহ। আমি ধৈর্য্য ও সাহসের সাথে সবাইকে সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে একযোগে পরিস্থিতি মোকাবিলার উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি। শ্রমিকের স্বার্থ সংরক্ষণ ও অধিকার প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে দেশ এগিয়ে যাবে সমৃদ্ধির পথে – মহান মে দিবসে এ প্রত্যাশা।”

ছিন্নমূল ও অসহায়দের পাশে দাঁড়ালেন মোবাশ্বের চৌধুরী 

সুমন সরদার

 

করোনা আতঙ্কে যখন সবাই নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত ঠিক তখনই ঢাকা- ১৪ আসন অসহায় ছিন্নমূল ও কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে মানবতার অনন্য নজির স্থাপণ করে চলছেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোবাশ্বের হোসেন চৌধুরী। তিনি দুস্থ অসহায় ও কর্মহীন মানুষের কাছে যাচ্ছেন কখনও ইফতার সামগ্রী, কখনও চাল,ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে আবার কখনও গভীর রাতে সেহেরির খাবার নিয়ে ছুটছেন চির অবহেলিত ছিন্নমূল মানুষের কাছে। এছাড়া নিয়মিত তিনি ঢাকা-১৪ আসনের বিভিন্ন এলাকায ত্রাণ ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধক সামগ্রী বিতরণ করে সচেতনতা মূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

মোবাশ্বের হোসেন চৌধুরী বলেন, বর্তমান সময়টি আমাদের জন্য বিপদজনক হয়ে দাঁড়িয়েছে। কর্মহীন হয়ে পড়েছে দিনমজুর ও নিন্মআয়ের মানুষেরা। এই সংকট সময়ে আমাদের সকলের উচিত গরীব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেধা,দক্ষতা,প্রজ্ঞা এবং বলিষ্ঠ নেতৃত্বে অত্যন্ত সফলতার সাথে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা করে যাচ্ছেন। এ দুর্যোগকালীন সময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে জনগণের পাশে দাড়ানোর নির্দেশনা প্রদান করেছেন তিনি। সেই নির্দেশনা অনুসরণ করে বিভিন্ন স্থানে মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধক সামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছি। এমনকি যারা চাইতে পারে না তাদের ঘরে ঘরে গিয়ে এই খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। যতদিন পর্যন্ত করোনাভাইরাস নিরাময় না হবে ততদিন পর্যন্ত এ সকল কর্মহীন অসহায় ও দুঃস্থ মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম চালু থাকবে বলে জানান তিনি।

প্রভাতী ও মাতৃছায়া উদ্যোগে ইফতার সামগ্রী বিতরণ

 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রামে শুক্রবার (৩০,এপ্রিল) বিকালে প্রভাতী ও মাতৃছায়া উদ্যোগে অসহায়, দুঃস্থদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। প্রায় ১০০ পরিবারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে সংগঠনটি।

 

সংগঠনটির সভাপতি নূর ফয়সাল রেজা বলেন, বর্তমানে মহামারী (কোভিড ১৯) করোনার দ্বিতীয় স্রোত ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। এমন অবস্থায় অনেক পরিবার অসহায় হয়ে পরেছে কর্মসংস্থান হারিয়ে। পবিত্র রমজান মাসে তাই আমরা আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে কিছু অসহায় ও দুঃস্থ পরিবারকে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করছি। এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। তিনি সমাজের বিত্তবান শ্রেণীর মানুষদেরকেও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

উক্ত ইফতার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, প্রভাতীর সভাপতি নূর ফয়সাল রেজা,আশরাফ সাজ্জাদ,সাবিত জাওয়াদ নাদিম,রাশেদ খান মাতৃছায়ার সভাপতি আনিস মাহমুদ,সাধারণ-সম্পাদক হাসান রেজা,আবরার বিন শফিক,আরিফ হোসাইন,সাফায়েত হাসান,ইফাজ মাহমুদ,সাকলাইন চৌধুরী,মোহাম্মদ বাবু,হাসানুল কবির আকিফ ও মোহাম্মদ সাজিদ, প্রমুখ।