চুলপড়া রোধে করোনিয় ও যে খাবার খেতে হবে প্রতিদিন আপনাকে।।

আমন্ড বা কাঠবাদাম: এই বাদামে প্রচুর পরিমাণে বায়োটিন নামের যৌগ আছে। এটি চুলের ঘনত্ব বাড়াতে এবং চুল ওঠা কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ৮-১০টা কাঠবাদাম সকালে খালি পেটে খেলে টাকপড়া অনেকটা প্রতিরোধ হয়।
ডিম: ডিমেও বায়োটিন বা প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি৭ রয়েছে। তাই যারা চুল উঠে যাওয়া নিয়ে চিন্তিত, নিয়মিত ডিম খেলে উপকার পাবেন। এর বাইরে ডিমে প্রচুর প্রোটিনও রয়েছে। এটিও চুলের বৃদ্ধি এবং চুল শক্ত করতে সাহায্য করে।
স্ট্রবেরি: এই ফলে প্রচুর উপকারী সিলিকা রয়েছে। চুলের বৃদ্ধির অন্যতম উপাদান এটি। নিয়মিত স্ট্রবেরি খেলে চুলের বৃদ্ধি ভালো হয়। এ ছাড়াও স্ট্রবেরিতে এলাজিক অ্যাসিড রয়েছে। এটি চুল ওঠা আটকায়।
আমলকি: চুল সুন্দর করে- আমলকি পাতার মতো আমলকিও চুলের জন্য কার্যকরী এক টনিক। এটি চুল পড়া বন্ধ করে। খুশকি রোধ করে, চুলের ফলিকেলগুলো শক্তিশালী করে এবং মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। যার ফলে চুলের বৃদ্ধি ঘটে।
আমলকি একটি প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবেও কাজ করে। আমলকির হেয়ারপ্যাক ব্যবহারের ফলে চুল হয় ঝলমলে, কোমল আর শক্তিশালী। নিয়মিত আমলার তেল ও হেনাতে আমলা গুঁড়ো মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে ব্যবহার করতে পারে।
একটি মাঝারি আকারের কমলার চেয়েও ছোট্ট একটি আমলকিতে বেশি পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে। এমনকি ডালিমের চেয়ে ১৭ গুণ বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেসন্ট আছে- এমনই মত বিজ্ঞানীদের। হাজারো পুষ্টিগুণে ভরপুর এই ফল হজমশক্তি বাড়ানো থেকে শুরু করে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করে।
আয়ুর্বেদ মতে, ডায়াবেটিস ও ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণেও কার্যকরী আমলকি। এক আমলকির আছে হাজারো গুণ। বার্ধক্য প্রতিরোধে, চুল ঘন ও লম্বা করতে এমনকি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও সহায়তা করে এটি। আমলকি অন্যতম টনিক। ত্বক উজ্জ্বল করে, রক্তকে বিশুদ্ধ করতে এবং চোখের দৃষ্টিও উন্নত করতে সহায়তা করে।

শরীয়তপুরে জমজ ভাই বোনের পানিতে ডুবে মৃত্যু।।

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় পুকুরে ডুবে একই পরিবারের জমজ দুই ভাই বোনের মৃত্যু হয়েছে। আজ (৭ জুন) সকাল ১০ টায় সখিপুর থানার দক্ষিণ  তারাবুনিয়া ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড মঞ্জিল ঢালি কান্দি  এ ঘটনা ঘটে।
মারা যাওয়া শিশুরা হলেন-  কুদ্দুস আলী বেপারীর  মেয়ে  লামিয়া (৪) ও ছেলে  মাসুদ (৪) নামের জমজ ভাই বোন।
পরিবার সূত্রে জানাযায় কুদ্দুস বেপারীর ৪ ছেলে মেয়ে। বড় ছেলে মেয়েকে নিয়ে  সকালে নাস্তা বানিয়ে মাদ্রাসায় দিয়ে আসতে নিয়ে যায় মা। এবং যাওয়ার সময় ৪ বছরের জমজ দুই ভাই – বোন কে কিছু টাকা দিয়ে যায়।  পাশে থাকা দোকান থেকে কিছু কিনে খাওয়ার জন্য।  ১০ টার দিকে বাড়িতে এসে তাদের খোজ করলে কোথাও পাওয়া যায়নি। নানা বাড়িতে এসেও পায়নি তাদেরকে পরে বাড়ির পাশে বৃষ্টিতে জমে থাকা পুকুরে তাদের লাশ বেশে উঠেছে  দেখতে পায় স্থানীয়রা।
সেখান থেকে তাদের উদ্ধার করে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ বেনজীর আহমেদ  তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন, তিনি বলেন   তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে আসার পূর্বেই মারা গেছে।
পরে দুপুরে পারিবারিক কবরস্থান তাদের কে
দাফন করা হয়।
শিশু দুটির অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
এ বিষয়ে সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান হাওলাদার বলেন, ‘বিষয়টি আমরা জেনেছি,  এখনো কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে”

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুর্নীতির ডিপো: হারুন

, ঢাকা- দেশের মন্ত্রণালয়কে দুর্নীতির ডিপো আখ্যা দিয়ে সংস্কারের জন্য কমিটি ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দাবি করেছেন সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট হারুনুর রশীদ। সোমবার (৭ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটের ছাঁটাই প্রস্তাব আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি জানান।

 

বিএনপির হারুনুর রশীদ বলেন, কেনাকাটায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুর্নীতির ডিপো। কীভাবে এই মন্ত্রণালয়ের সংস্কার করবেন, তা স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে সুস্পষ্টভাবে জানাতে হবে। স্বাস্থ্য খাত নিয়ে কথা বলতে বলতে তিনি বেহাল হয়ে গেছেন। স্বাস্থ্য বিভাগকে সংস্কারের আওতায় আনতে হবে। বেহাল দশা থেকে রক্ষা করতে কমিটি গঠন করতে হবে।

তিনি বলেন, ঢাকায় এক পদে ৫০ জন চিকিৎসক, আর জেলা-উপজেলায় চিকিৎসক নেই। লাখ লাখ মানুষ চিকিৎসার জন্য ভারত যাচ্ছে। লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে চলে যাচ্ছে। স্বাস্থ্য খাতকে ঢেলে সাজাতে পারলে এটা রোধ করা যাবে।

টিকা প্রসঙ্গে হারুনুর রশীদ বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্পষ্টভাবে জানাবেন আমরা কবে থেকে টিকার কার্যক্রম চালাবো। পাশাপাশি সরকারের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। মানসম্মতভাবে যদি এ টিকাকে উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় তাহলে আমরা আগামী এক বছরের মধ্যে ৮০ ভাগ মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে পারব। এজন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি ব্যবস্থাকেও উন্মুক্ত করতে হবে। এখানে দুর্নীতি থাকা চলবে না।

 

তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে টিকার জন্য চুক্তি করেছিলেন। কেন আজকে ভারত চুক্তি বাতিল করল? কী কারণে স্বাস্থ্যমন্ত্রী টাকা চাচ্ছেন এবং কী কারণে টাকা ব্যয় করতে পারলেন না এসব বিষয়ে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে হবে। হাসপাতালে সরঞ্জাম দেবেন, ডাক্তার নেই, টেকনোলজিস্ট নেই। এইগুলো বেকার নষ্ট হবে। আজকে আমি বললাম একটা আধুনিক অ্যাম্বুলেন্স দেন। আপনি অ্যাম্বুলেন্স দিলেন, ড্রাইভার নেই। ওটা তো গ্যারেজে পড়ে থেকে পরের বছরই নষ্ট হয়ে যাবে। এই অবস্থা হয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের। আজকে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকার সরঞ্জাম নিয়ে আসছেন, জিনিসপত্র নিয়ে আসছেন। সেখানে জনবল নেই, কিছু নেই। পড়ে পড়ে নষ্ট হচ্ছে।

 

হারুনুর রশীদ বলেন, আমি গভীর উদ্বেগের সঙ্গে বলছি, বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তিনি দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার সুচিকিৎসার জন্য আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করব, তাকে যেন বিদেশ নিয়ে চিকিৎসা করানোর সুযোগটা দেওয়া হয়।

ভাতিজীর গর্ভপাত ঘটালেন চাচা ।

নওগাঁর মান্দায় বিয়ের প্রলোভন এবং আপত্তিকর ছবি দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে এক কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ এবং গর্ভপাত করানোর অভিযোগ উঠেছে চাচার বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর মান্দা উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের বিলদুবলা গ্রামে।
অভিযুক্ত নাহিদ হাসান নান্নু ওই গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। সে এলাকায় বখাটে হিসেবে পরিচিত।

 

স্থানীয়রা জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকে বখাটে নান্নু পলাতক। এছাড়া ওই ঘটনায় অসহায় কলেজছাত্রীকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে পরিবার। বর্তমানে ভুক্তভোগী ন্যায় বিচারের আসায় বিভিন্ন জনের কাছে যাচ্ছেন।

 

জানা যায়, নাহিদ হাসান নান্নু ও ওই কলেজছাত্রীর বাড়ি পাশাপাশি। সম্পর্কে চাচা হওয়ায় তার বাড়িতে অবাধে যাতায়াত ছিল নান্নুর। এক পর্যায়ে বিভিন্ন প্রলোভন এবং চাকুরির অযুহাত দেখিয়ে কিছুদিনের জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে যায় নান্নু। সেখানে দুজনে স্বামী- স্ত্রী পরিচয়ে থাকত। সম্প্রতি করোনার কারণে তারা বাড়িতে ফিরে আসে। কিন্তু ঢাকায় থাকাকালীন নান্নু বিয়ের প্রলোভন দিয়ে একাধিকবার শারিরীক সম্পর্ক করায় মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন ওই কলেজছাত্রী। ২৬ মে তাকে ওই উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে গর্ভপাত করায় নান্নু।

 

অভিযুক্ত নাহিদ হাসান নান্নু ও তার পরিবারের সদস্যরা পলাতক থাকায় বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মান্দা থানার ওসি শাহিনুর রহমান বলেন, ধর্ষণ এবং নারী নির্যাতনের সঙ্গে জড়িতদের কোনো ছাড় নেই। ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী অভিযোগ করেননি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শত্রুর বিষে মরল পুকুরভর্তি পাঙাশ, বিপাকে তরুণ খামারি

কিশোর বয়স থেকেই ঢাকার সাভারে মাছ চাষ শুরু করেন রাসেল খান। কঠোর পরিশ্রম করে এখন তিনি সফল খামারি। বেশ কয়েকটি মাছের খামারের পাশাপাশি একটি গরুর খামারও করেছেন তিনি। কিন্তু কিছু মানুষের ষড়যন্ত্রের কারণে বারবার তাকে হোঁচট খেতে হচ্ছে। গত বছরও একটি খামারের প্রায় ২০ লাখ টাকার মাছ বিষ প্রয়োগে মেরে ফেলার পর আবারও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। এবার দুটি পুকুরের প্রায় ৮ থেকে ৯ লাখ টাকার মাছ বিষ প্রয়োগে মেরে ফেলার ঘটনা ঘটেছে।
সোমবার (৭ ‍জুন) ভোর থেকে বেলা সাড়ে ৯টা পর্যন্ত আশুলিয়ার মোজার মিল বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন দুটি পুকুর থেকে বিপুল সংখ্যা মরে যাওয়া পাঙাশ মাছ সংগ্রহ করেন রাসেল ও তার কর্মীরা।
ভুক্তভোগী খামারি রাসেল খান বলেন, ‘একটার মইদ্দে ১২ হাজার আর আরেকটার মইদ্দে ৬ হাজার পাঙাশ আছিল… একেকটা পাঙাশ এক-দেড় কেজি ওজন হইছিল। এখন বাজারে নিম্নে ৮০ টাকা কেজি পাঙাশ বিক্রি হয়। সেই হিসাবে আমার ৮-১০ লাখ টাকার ক্ষতি হইছে।’
তিনি বলেন, ‘মনে হয় রাত ৩টার দিকে বিষটা দিছে। সকালে যখন খাবার দিতাছি তখন মাছ নড়ে না। পরে লোক নামাইয়া দেহি যে, পানির নিচে সব মাছ মইরা পইড়া গেছে। প্রায় ৮০-৯০ মণ মাছ উঠাইছি।’
কেন বা কারা এমন কাজ করল এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি মাছ চাষ করি প্রায় আট বছর। আর ট্রেড লাইসেন্স করছি তিন বছর ধইরা। অহন অনেক শত্রু আছে না ভাই। আরও প্রায় ৮-৯ মাস আগেও এই রকম ২০ লাখ টাকার মতোন মাছ মাইরা ফালাইছিল। আমি অল্প বয়সে এই রকম একটা ব্যবসা গোছাইছি। তাছাড়া আমার আরও অনেক খামার আছে। বাংলা মাছের (দেশি) খামার আছে আরও চারটা। এমনতে একটা গরুর খামারও আছে।’
রাসেল বলেন, ‘গেল বন্যায় এমনি আমি অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হইছি। ইপিজেডের বিষাক্ত পানি ঢুইকা আমার এক পুকুরের প্রায় এক কোটি টাকার মাছ মইরা গেছিল। অনেক ঋণ হয়ে গেছি। আবার এই মাছগুলো মাইরা ফালাইল আরও ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেলাম।’
সাভার উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, ‘এই ধরনের বিষয়গুলাতে আসলে আমাদের করার কিছু থাকে না। কারণ বিষটা যে এখানে দিছে এটার কোনো সাক্ষী নেই। আবার পানি পরীক্ষা করে যে বিষ, আইডেন্টিফাই করার মতো ব্যবস্থা আমাদের নেই। একমাত্র ময়মনসিংহে থাকতে পারে সেটাও সুনিশ্চিত না।’
‘এখন প্রথম করণীয় হচ্ছে, উনি যদি কাউকে সন্দেহ করে; তাহলে ওই খামারি তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই সুস্পষ্ট কারণ দেখাতে হবে। এ জন্য আমরা তাকে সহযোগিতা করব।’
ওই খামারিকে আর্থিক সাহায্যের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘করোনাকালীন সময়ে খামারি বা কৃষককে প্রণোদনা কিংবা অনুদান দেওয়া হবে এমন কোন নির্দেশনা আমরা পাইনি। সরকারি ব্যাংক ছাড়াও বেসরকারি ব্যাংকেও প্রধানমন্ত্রীর একটা ফান্ড কৃষি ক্ষাতের জন্য দেওয়া আছে। সেক্ষেত্রে খামারি বা চাষিকে সার্টিফাই করে তারা লোন দেবে। যেহেতু তিনি ক্ষতিগ্রস্ত তাই আমরা তাকে চাষি হিসেবে বা তরুণ সফল উদ্যোক্তা হিসেবে সার্টিফাই করে দিব।’

২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু।

 

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় দেশে মোট প্রাণহানি হলো ১২ হাজার ৮৬৯ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ১১.৪৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৭ হাজার ১৬৯ টি।

সোমবার (৭ জুন) স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ১ হাজার ৯৭০ জনের শরীরে। হিসেব অনুযায়ী এ পর্যন্ত দেশে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮ লাখ ১২ হাজার ৯৬০ জনের।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৯১৮ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হলো ৭ লাখ ৫৩ হাজার ২৪০ জন।

উল্লেখ্য, দেশে করোনার প্রথম সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছিল গত বছরের ৮ মার্চ। এর ১০ দিনের মাথায় ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।

অন্য রকম সাজে অপু বিশ্বাস।

করোনার মধ্যে স্বল্প পরিসরে ঘরোয়া আয়োজনেই সম্পন্ন করতে হচ্ছে বিয়ের অনুষ্ঠান। তবে অনুষ্ঠানের আকার যেমনই হোক, বিয়ে মানেই আনন্দ আর খুশি। বর-কনের সেই মাহেন্দ্রক্ষণকে কানায় কানায় পূর্ণ করতে উত্তরার ১১ নং সেক্টরে খান টাওয়ারে ‘রয়েল মালাবার জুয়েলারী অ্যান্ড ফ্যাশন মল’ সেজেছে উৎসবের সাজে। তাদের এই অপু বিশ্বাস।নননননননননননননটট্আঠঠঠঠঠঠধরদ্রদধ্য়োঔরধধধদ  সসসসজনের অংশ হিসেবে প্রথমে শাড়ি এবং পরে লেহেঙ্গার সঙ্গে বিয়ের গহনায় নিজেকে জড়িয়ে নববধূ সাজে আবির্ভূত হন অপু বিশ্বাস।

 

রয়েল মালাবার জুয়েলারী অ্যান্ড ফ্যাশন মলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আসলাম খান বলেন, সবাই চায় বিয়ের শাড়ি বা লেহেঙ্গাটা হবে এক্সক্লুসিভ। এই স্মৃতিময় স্বপ্ন বোনা সাধারণ কারিগর দ্বারা সম্ভব নয়। অনেকগুলো দক্ষ হাতের ছোঁয়ায় তৈরি হয় একটি বিয়ের শাড়ি বা লেহেঙ্গা।

 

এমন একঝাঁক কারিগরের হাতে তৈরি রয়েল মালাবারের বিয়ের সব পোশাক। সেই সঙ্গে বিয়ের গহনাও চাই আধুনিক। সেদিক দিয়ে আমরা বেশ এগিয়ে। একই ছাদের নিচে পোশাকের পাশাপাশি চোখ ধাঁধানো আধুনিক সব ডিজাইনের স্বর্ণ এবং হীরার গহনা থাকছে আমাদের এখানে। বর-কনেকে গহনা এবং পোশাকে সাজিয়ে দেখার সুযোগও রয়েছে।” তিনি আরও জানান, “আমাদের প্রতিটি সেলসম্যান ‘স্বাস্থ্যবিধি না মানলে মৃত্যুঝুঁকি আছে’ স্লোগানকে মাথায় রেখে ক্রেতাদের সর্বোচ্চ সাবধানতার সঙ্গে সেবা দিচ্ছেন।”

 

এ ছাড়াও পোশাকের গুণগতমান, বৈচিত্র্য ও নকশার নতুনত্বের জন্য রয়েল মালাবার জুয়েলারী অ্যান্ড ফ্যাশন মলে শুরু থেকেই আলাদা। গর্জিয়াস সব পাঞ্জাবি, নতুন নকশার শাড়ি, লং কামিজ, থ্রি-পিস, ফ্রক, টপস, শার্ট, স্যুট, জুতা ছাড়াও বাচ্চাদের জন্য রয়েছে বড় কালেকশন। বর্তমান করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশের বাইরে শপিংয়ে যাওয়া সম্ভব নয় বলে অভিজাত গ্রাহকদের জন্য সাজানো উপমহাদেশের সব এক্সক্লুসিভ কালেকশন চোখে পড়ার মতো। রয়েল মালাবারে এসে বিদেশে শপিংয়ের আবহ পাবেন ক্রেতারা।

 

1 2