সরকার পতনের জন্য আন্দোলনের ডাক দিতে বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র।

ঢাকা- সরকার পতনের জন্য আন্দোলনের ডাক দিতে বলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুরে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘দলের নেতা তারেক রহমান, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিদেশের মাটিতে, তেমনি অবস্থায় আমরা ভার্চুয়ালি এমন আলোচনার মধ্য দিয়ে কথা বলে যাচ্ছি ৷ আমার মনে হয় কথায় কাজ হবে না। জিয়ার কথায় চলতে হবে, কথা কম কাজ বেশি ৷

‘এখন মনে হচ্ছে কথা বলার থেকে বেশি জরুরি সরকারের পতন কীভাবে করাব ৷ সেই পতনের ডাক দেন, সেই আন্দোলনের ডাক দেন। আমরা যদি অতীতের কোনো ইতিহাসে থাকি, আগামী ইতিহাসেও আমরা থাকব৷ আর একটি ইতিহাস সৃষ্টি করব।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান বলেন, আন্দোলনের ডাক এলে আমি নব্বইয়ের চেতনায় ঘোষণা দিতে চাই, শেখ হাসিনার পতন ছাড়া ঘরে ফিরবো না। এভাবে সকলের প্রস্তুতি নিন।

আমান বলেন, “আমাদের নেতা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানের একটি স্লোগান হচ্ছে, ‘যদি তুমি ভয় পাও, তবে তুমি শেষ। যদি তুমি রুখে দাঁড়াও তবে তুমি বাংলাদেশ।’ এই হাসিনা সরকারকে হটিয়ে সেই শহীদ জিয়ার বাংলাদেশ, আধুনিক বাংলাদেশ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বাংলাদেশ, তারেক রহমানের স্বপ্নের বাংলাদেশ আমরা গড়ে তুলবো ইনশাআল্লাহ।”

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল বলেন, ঢাকা মহানগরের থানা ও ওয়ার্ড নেতাদের বলবো, সারা বাংলাদেশের মানুষ ঢাকার দিকে তাকিয়ে আছে। প্রতিটি থানা ও ওয়ার্ড সংগঠনের শক্তি বাড়ান। আগামীতে এই শক্তি নিয়ে আমাদের মাঠে নামতে হবে। আমরা দেখতে চাই, ওদের কত শক্তি আছে, আমাদের জনতার শক্তিকে মোকাবিলা করার।

ফসলি জমি রক্ষা করুন, মাদকে না বলুন,তার পরেও শরীয়তপুরে অবাধে কাটা হচ্ছে ফসলি জমি, কেউ দেখার নেই।

জেলার নড়িয়া উপজেলায় শত শত একর ফসলি জমি কেঁটে পুকুর এবং মাছের ঘের তৈরি করা হচ্ছে।

জানাগেছে, প্রশাসনের শত চেষ্টার পরও একটি প্রভাবশালী চক্রের ইশারায় চলছে এ ধ্বংসযজ্ঞ। ফলে এ অঞ্চলের ফসলি জমির পরিমাণ দিন দিন কমতে শুরু করেছে।এতে হুমকিতে পড়ছে পুরো উপজেলার খাদ্য নিরাপত্তা।

সরেজমিনে গিয়ে আজ বৃহস্পতিবার ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের রাম ঠাকুর বাড়ির পূব দিকে বোরো ধানের জমি কেটে মাছের ঘের তৈরি করে দিচ্ছে স্থানীয় প্রভাবশালী দুলাল হোসেন ওরফে ভেকু দুলাল। যাকে একনামে ভেকু দুলাল বলে চিনে সবাই।

সেখানে সংবাদ কর্মীরা যাওয়ার কথা শুনতেই চলমান বেকু বন্ধ করে পালিয়ে যায় চালক।

উপজেলা প্রশাসন সকল বেকু মালিকদের বেকু জব্দ এবং জরিমানা করে বন্ধ করতে পারলেও ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের কালিখোলা এলাকার এই ভেকু মালিক দুলাল হোসেনের ভেকু কেন এখনও বন্ধ করতে পারেনি ফসলী জমি কাটা এবং মাছের ঘের তৈরি করা থেকে তা নিয়ে স্থানীয় কৃষক এবং জনগনের মনে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজন বলছেন, আগের থেকে অনেক ভেকু মেশিন এলাকা থেকে কমে গেছে, আগে অনেক দেখেছি এবং বেশির ভাগ ফসলী জমি কেটে ফেলেছে তবে এখনও দুলাল তার ভেকু মেশিন দিয়ে ফসলী জমি কেটেই যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে ধান আর চোখে দেখুম না আমরা।

এদিকে নড়িয়া উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, উপজেলায় এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ধানচাষীরা জানান,এ বছর ধানের তেমন কোন রোগ বালাই না থাকায় গত বছরের ন্যায় এবারো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে।তবে ফসলী জমি ভেকু দিয়ে এভাবে কাটলে ধানী জমি আর থাকবে না।

এ ব্যাপারে নড়িয়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ রুকোনুজ্জামান জানান, চলতি বছরে এ উপজেলায় মোট ৫ হাজার ৯ শত ৪০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে বোরো আবাদ। যার মধ্যে ৬ শত ৫০ হেক্টর জমিতে রয়েছে স্থানীয় বোরো। যা চরাঞ্চলে বেশি আবাদ হয়েছে। এবং যার বিঘা প্রতি ফলন ১৬/১৭ মণ।

এ ছাড়াও হাইব্রিড এবং উফশী বোরোর আওতায় ৫ হাজার ২শ ৭০ হেক্টরের মতো জমিতে আবাদ হয়েছে, যার ফলন অসাধারণ ও খুবই ভালো হয়েছে।

এ বিষয়ে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ আনোয়ার হোসাইন খান বলেন, আমার ইউনিয়নের কোন কৃষকের কাছ থেকে জোর করে জমি নিতে চাইলে ইউএনও মহোদয়ের নির্দেশে আমরা তাদেরকে প্রতিহত করি। তবে আমার ইউনিয়নে এসব অবৈধ কাজ আমি সহ্য করবো না, বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিষিদ্ধ করেছেন ফসলী জমি কাটতে সেই সাথে আমাদের নড়িয়া এবং সখিপুর দুুুই আসনের সংসদ এবং বাংলাদেশ সরকারের পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এমপির নির্দেশে আমরা আমাদের ইউনিয়ন কে সঠিক এবং সুুুন্দর ভাবে পরিচালনা করছি, এতে যদি কেউ এ ইউনিয়নে অবৈধ কোন কাজ করে বদনাম করার চেষ্টা করে তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠিন ভূমিকা নেয়া হবে।

এদিকে ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা বলেন, বিষয়টি গত বৃহস্পতিবার জেনেছি তখন আমরা সাথে সাথে ঐখানে গিয়ে ভেকু বন্ধ করে উপরে উঠিয়ে দিয়ে এসেছি এখন আবার কাজ শুরু করেছে এটা জানলাম আমরা এখন দুপুরের খাবার খেয়েই ঐখানে যাবো।

এ ব্যাপারে নড়িয়া উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত) নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব তানভীর আল নাসীফ বলেন, কৃষি জমি রক্ষার বিষয়ে আমাদের উপজেলা প্রশাসন সর্বোচ্চ তৎপর রয়েছে। এ বিষয় টি আমি শুনেছি সরেজমিনে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দালালমুক্ত অভিযান ২৪ দালাল আট ঢাকা মেডিকেল কলেজহম হাসপাতালে ।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালকে দালালমুক্ত করতে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। হাসপাতালের ভেতর ও বাইরে অভিযান চালিয়ে মোট ২৪ জনকে আটক করেছে পুলিশের এই এলিট ফোর্সটি। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে অনেককে আটক করা হলেও পরে যাচাই-বাছাই করে তাদের মধ্যে ২৪ জনকে সর্বোচ্চ এক মাসসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

তিনি বলেন, ‘ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সারাদেশ থেকে মানুষ চিকিৎসা নিতে আসেন। কিন্তু কতিপয় মধ্যস্বত্বভোগী বা দালাল তাদের সেবাগ্রহণে বাধাসৃষ্টি করে। তাদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই র‌্যাব-৩ ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় আজ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছি।’

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, ‘এখানে যারা ভুক্তভোগী তারা অভিযোগ করেছেন। তারা এখানে বিভিন্ন সেবা নিতে আসেন। এখানে (হাসপাতালে) সিস্টেম খুবই চমৎকার। কিন্তু কতিপয় দালাল তাদের ব্রেইন ওয়াশ করে নিম্নমানের হাসপাতালে নিয়ে যায় যে কম খরচে ভালো চিকিৎসা পাবে। কিন্তু তারা নিম্নমানের প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যায়। যেখানে তারা (রোগীরা) ভালো ডাক্তার, ভালো চিকিৎসা পান না বলে আমাদের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এসব অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি এবং বিভিন্ন নিম্নমানের প্রাইভেট হাসপাতালে অভিযান অব্যাহত আছে। যারা মূলত মানুষের সেবা গ্রহণে বাধা সৃষ্টি করেন তাদের বিরুদ্ধেই আমাদের অভিযান। আমরা ২৪ জনকে আটক করেছি এবং তারা স্বীকার করেছেন বেশকিছু দিন ধরে তারা সেবাগ্রহণকারীদের হয়রানি করে আসছিলেন। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আটক ২৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

পরকীয়া প্রেমিককে বিয়ে করতে নিজের পুত সন্তান কে হত্যা করলো মা

পরকীয়া প্রেমিককে বিয়ে করে নতুন সংসার গড়তে নিজ সন্তানকে হত্যা করেন মা। এরপর মা জান্নাতা আক্তার শিশুটির অপমৃত্যু বলে প্রচার করেন। ঠাকুরগাঁও সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে নিজ সন্তান আরাফের হত্যার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেন জান্নাতা আক্তার। গত বুধবার (৩ জুন) সকালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা দেওগাঁও চেড়াডাঙ্গী গ্রামে এ হত্যার ঘটনা ঘটে। জবানবন্দির পর আদালত জান্নাতাকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

স্বামীর সঙ্গে ঢাকার একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন জান্নাতা আক্তার। সেই সুবাদে পাশের ফ্ল্যাটের এক তরুণের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কও হয় তাদের। তাই পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে নতুন ঘর বাঁধতে মরিয়া হয়ে ওঠেন তিনি। তবে পথের কাঁটা ছিল ছয় বছর বয়সী সন্তান। শেষমেশ তাকেও নিজ হাতে হত্যা করেন পাষণ্ড মা।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভীরুল ইসলাম জানান, ৩ জুন দুপুরে ফ্যানের সঙ্গে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আরাফ আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পায় পুলিশ। লাশ উদ্ধারের পর ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। সেই সঙ্গে লাশটি ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।
ওসি আরো জানান, আরাফ হত্যায় স্ত্রী জান্নাতা আক্তারের কাছে বিভিন্নভাবে জানতে স্বামী খলিলুর রহমানকে পরামর্শ দেয়া হয়। এ সময় জান্নাতার কথা খলিলুরের সন্দেহ হয়। তিনি বিষয়টি মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে জানান। পরে জান্নাতা আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় হাজির করা হয়। এরপর তাকে বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্ত টিম। একপর্যায়ে আরাফের হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেন জান্নাতা।

জিজ্ঞাসাবাদে জান্নাতা জানান, স্বামীর সঙ্গে ঢাকায় থাকার সময় পাশের ফ্লাটের ইমরান নামে এক তরুণের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন তিনি। তাদের মধ্যে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। দুই মাস আগে সন্তানসহ তাকে ঠাকুরগাঁওয়ের দেওগাঁও চেড়াডাঙ্গী গ্রামের শ্বশুরবাড়িতে রেখে যান খলিলুর। শ্বশুরবাড়িতে এলেও মোবাইলে বিভিন্নভাবে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছিলেন পরকীয়া প্রেমিক ইমরান। এসব বিষয় নিয়ে তিনি মানসিক অস্থিরতায় ভুগছিলেন। এ কারণেই আরাফকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন তিনি।

নতুন সেনাপ্রধান হলেন এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

 

নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

নতুন সেনাপ্রধান হলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদকে সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

 

আজ বৃহস্পতিবার (১০ জুন) প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব ওয়াহিদা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ নিয়োগ দেওয়া হয়।

 

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, সেনাবাহিনীর কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদকে আগামী ২৪ জুন (২০২১) বিকাল থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে জেনারেল পদে পদোন্নতি প্রদানপূর্বক প্রতিরক্ষা বাহিনীগুলোর প্রধানদের (নিয়োগ, বেতন, ভাতা এবং অন্যান্য সুবিধা) আইন, ২০১৮ অনুযায়ী ওইদিন বিকাল থেকে ৩ বছরের জন্য সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হলো।

 

বর্তমান সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হবেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

সাবেক ওসি প্রদীপ আবারো কক্সবাজার কারাগারে

সাবেক ওসি প্রদীপ

এন24 ডেস্ক : অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাসকে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে কক্সবাজার কারাগারে স্থানান্তর করা হয়েছে। আলোচিত এ হত্যা মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার দীর্ঘ সাত মাস পর বৃহস্পতিবার (১০ জুন) দুপুরে তাকে আবারও কক্সবাজার কারাগারে আনা হচ্ছে।

 

চট্টগ্রাম কারাগারের জেলার খন্দকার গোলাম হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

তিনি জানান, বেলা পৌনে ১১টার দিকে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে করে কড়া নিরাপত্তাব্যবস্থার মধ্য দিয়ে কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা হয়েছে একটি দল। করোনার কারণে আদালত বন্ধ থাকায় তাকে সরাসরি কক্সবাজারের কারা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তাকে দীর্ঘ সাত মাস দুদকের একটি মামলায় হাজির হতে চট্টগ্রাম কারাগারে রাখা হয়েছিল।

 

আলোচিত মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ২০২০ সালের ১৩ ডিসেম্বর ওসি প্রদীপ কুমার দাসসহ ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১৫-এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. খায়রুল ইসলাম।

ওই বছরের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশিকে কেন্দ্র করে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাখেদ খান।

 

এ ঘটনায় গত ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়েছে বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ (পরিদর্শক) লিয়াকত আলীকে প্রধান আসামি করে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামি করা হয়। আদালত মামলাটির তদন্ত করার আদেশ দেন র‌্যাবকে।

 

এরপর গত ৬ আগস্ট প্রধান আসামি লিয়াকত আলী ও প্রদীপ কুমার দাশসহ ৭ পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

 

পরবর্তীতে সিনহা হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে পুলিশের করা মামলার ৩ জন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টের দায়িত্বরত আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এ ছাড়া একই অভিযোগে পরে গ্রেফতার করা হয় টেকনাফ থানা পুলিশের সাবেক সদস্য কনস্টেবল রুবেল শর্মাকেও।

 

মামলায় গ্রেফতার ১৪ আসামিকে র‌্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তা বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাদের মধ্যে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ছাড়া ১২ জন আসামি আদালতে ঘটনার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

 

গত ৪ অক্টোবর কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে প্রধান আসামি লিয়াকতের আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দিন এ মামলাটি করেন। ওই দিন আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

 

কিন্তু শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে সিনহা হত্যার মামলার বাদী শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস অসুস্থতার কারণে আদালতে উপস্থিত থাকতে না পারায় পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন ১০ নভেম্বর।

 

অন্যদিকে মামলাটি শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে (১০ নভেম্বর) সিনহা হত্যার মামলাটি বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা চেয়ে আবেদনকারী পক্ষের আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এতে মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির দিন আবারও পিছিয়ে যায়।

 

ওই দিন (১০ নভেম্বর) আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ১৩ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। এ মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার পর দুদকের একটি দুর্নীতি মামলায় চট্টগ্রাম আদালতে হাজির হতে হচ্ছিল ওসি প্রদীপকে। সে সুবাধে তাকে ২০২০ সালের নভেম্বরে চট্টগ্রাম কারাগারে পাঠানো হয়।

 

শরীয়তপুরে মডেল মসজিদ উদ্বোধন

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

শরীয়তপুরে মডেল মসজিদ উদ্বোধন

শরীয়তপুরে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে প্রথম পর্যায়ে ৫০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মধ্যে জেলার সদর ও গোসাইহাট উপজেলার ২টি কেন্দ্রের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বেলা সাড়ে ১১টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে উদ্বোধন করা হয়।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা ও গোসাইরহাট উপজেলার সারে ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের।

শরীয়তপুর সদর উপজেল মডেল মসজিদ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেদুর রহমান খোকা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর হাসান, জেলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী অমিত কুমার দেব, ইসলামী ফাউন্ডেশনের জেলা উপ-পরিচালক আব্দুল রাজ্জাক রনি, শরীয়তপুরের পৌরসভা মেয়র পারভেজ রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনদীপ ঘরাইসহ প্রমুখ।

1 2