নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে কোরবানীর পশুর মাংসসহ ও নগদ টাকা ঈদ উপহার বিতরণ রংধনু গ্রুপের

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে কোরবানীর পশুর মাংসসহ খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা ঈদের উপহার হিসেবে রংধনু গ্রুপের উদ্যোগে বিতরণ করা হয়েছে। ঈদের দ্বিতীয় ও তৃতীয়দিন উপজেলার নাওড়া এলাকায় রংধনু গ্রুপ ও কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম এই উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন। কোরবানীর পশুর মাংসের পাশাপাশি খাদ্য সামগ্রীর মাঝে ছিল
পোলাওর চাল, ডাল, তেল, সেমাই, চিনি, আলু, পিয়াজ, গুড়ো দুধসহ নগদ টাকা। ঈদ সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন রংধনু গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাউসার আহাম্মেদ অপু, ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান দিপু, পরিচালক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মিজান, থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খন্দকার আবুল বাশার টুকু, সদস্য এম এ করিম পাঠান, কায়েতপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুল আলম, সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল আউয়াল, যুবলীগ নেতা হাজী সফিকৃল ইসলাম, ছাত্রলীগ নেতা লুৎফর রহমান মুন্না, আশফাকুল আলম জেমান, আশরাফুল হক তুষার, মহিলালীগ নেত্রী স্বপ্না আবারসহ আরো অনেকে।
এসময় রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের রাষ্ট্রনায়ক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন এই মহামারীকালে নিজেদের অবস্থানে থেকে মানুষের পাশে দাড়াতে। মানবতার নেত্রীর ডাকে সারা দিয়ে গত দেড়বছর যাবত রূপগঞ্জের লক্ষাধিক পরিবারকে সহায়তা করেছে রংধনু গ্রুপ। ঈদের সময় হয়তো অনেকে একটু মাংসের ব্যবস্থা করতে পারলেও বাজারটা করতে পারেননি। তাদের জন্য ঈদ সামগ্রীসহ নগদ অর্থের ব্যবস্থা করার চেষ্টা করেছি। যতোদিন এই মহামারী থাকবে ততোদিন রূপগঞ্জের মানুষের পাশে থাকবে রংধনু গ্রুপ।।

ইমরান খান‌কে আম পাঠা‌লেন শেখ হা‌সিনা

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান‌কে ১ হাজার কে‌জি হা‌ড়িভাঙ্গা আম উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা।

শুক্রবার ইসলামাবাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি মোস্তফা জামিল খান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঈদুল আযহার দিনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ওই উপহারের আম হস্তান্তর করা হয়।

হাইকমিশন জানায়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর এ শুভেচ্ছা উপহার পাকিস্তানের পক্ষ থেকে ধন্যবাদের সঙ্গে গৃহীত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই উপহার ভ্রাতৃপ্রতিম দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে বিশেষ নজির হিসেবে বিবেচিত হবে হাইকমিশনের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

এর আগে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে একটি বিশেষ ফ্লাইটে লাহোরের আল্লামা ইকবাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাস্টমসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে এ উপহার বাংলাদেশ হাইকমিশন গ্রহণ করে।

বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ এই ’হাড়িভাঙা’ আম গ্রহণ করে শুভেচ্ছা উপহার পাঠানোর জন্য পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন বলে হাইকমিশনের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

নাচানাচি করতে গিয়ে ডুবলো পিকনিকের লঞ্চ! অল্পের জন্য রক্ষা পেল যাত্রীরা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার বাসুলিয়ায় যাত্রী নিয়ে একটি পিকনিকের লঞ্চ ডুবে যায়। তবে এ ঘটনায় কোন হতাহত হয়নি।বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) দুপুরে উপজেলার বাসুলিয়ার (চাপড়া বিল) এ ঘটনা ঘটে।

বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ জানান, যাত্রী নিয়ে একটি লঞ্চ ডুবে যায়। এ ঘটনায় সবাইকে উদ্ধার করা হয়েছে। কেউ নিখোঁজ বা আহত নেই। লঞ্চটিও উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঈদ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কালমেঘা গ্রামের ৩৫-৩৬ জন পিকআপ ভ্যান ও সাউন্ড সিস্টেম ভাড়া নিয়ে পিকনিক স্পট বাসুলিয়ায় (চাপড়া বিল) বেড়াতে আসেন। পরে সেখানে একটি লঞ্চ ভাড়া নিয়ে বিলটির বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে থাকেন তারা।

সাউন্ড সিস্টেমে গানের তালে তালে নাচানাচির এক পর্যায়ে লঞ্চটি ডুবে যায়। লঞ্চে থাকা সবাইকে উদ্ধার করা হয়েছে। লঞ্চে থাকা একাধিক যাত্রী বলেন, আমরা ঈদ উপলক্ষে বাসুলিয়ায় বেড়াতে আসি। সেখান থেকে একটি লঞ্চ ভাড়া নিয়ে বিলটির বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করি। বক্সে গানের তালে তালে সবাই নাচছিল। এক পর্যায়ে লঞ্চটি ডুবে যায়।

পরে অন্যান্য নৌকার যাত্রীদের সহযোগিতায় সবাই উঠে আসি। আর কেউ নিখোঁজ নেই। সবাই সুস্থ আছে। অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছি। তবে আমাদের ৩৫-৩৬টি মোবাইল ও কিছু টাকাও লঞ্চটিতে রয়েছে।
এদিকে বাসুলিয়ার (চাপড়া বিল) ঈদ উপলক্ষে হাজার হাজার দর্শনার্থীরা বেড়াতে এসেছেন। তবে স্বাস্থ্য বিধি মানছে না কেউ। কেউ থুঁতনির নিচে মাস্ক পরিধান করছেন আবার কাউকে প্যান্টের বেলের সাথে ঝুলিয়ে রাখতে দেখা গেছে।

বিয়ের খাবার না খেয়েই নতুন বউকে নিয়ে লঞ্চের ছাদে রাসেল

আগামীকাল শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল ছয়টায় কঠোর লকডাউন শিথিল করার মেয়াদ হচ্ছে। এর এসময় বন্ধ থাকবে বাস, ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল। এদিকে লকডাউনে ঢাকায় ফিরতে করেছেন মানুষ। যে যেভাবে পারছেন রাজধানীতে ফিরছেন। নতুন বিয়ে করেছে রাসেল। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা বলতে কেবলই আকদ পর্যন্ত হয়েছে। লকডাউনের কারণে আর আতিথেয়তার সম্ভব হয়নি। বিয়ের খাবার না খেয়েই ছুটতে হয়েছে কর্মস্থলের জন্য। রাসেল নতুন বউকে নিয়ে লঞ্চের কেবিনে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল রাসেলের। তাও হলো না। অস্বাভাবিক যাত্রীর চাপে শেষে লঞ্চের ছাদেই ঠাঁই হয়েছে নবদম্পতির।

রাসেলের বোন পারভিন বলেন, গতকালও জানতাম না আগামীকাল শুক্রবার থেকে আবার লকডাউন দিবে। আজ দুপুরে শুনেছি তখন কেবল আকদ হয়েছে। আয়োজন ছিল খাবারের। কিন্তু লকডাউন ঘোষণার পরপরই খাওয়া-দাওয়া না করেই নতুন বউ নিয়ে ঢাকা রওয়ানা দিয়েছি। যেতে কষ্ট হবে। কিন্তু কিছু করার নেই। ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সেলসম্যানের কাজ করেন রাসেল। নব পরিণীতা স্ত্রীর বাড়ি পাশের ইউনিয়নে বললেও নাম বলেননি রাসেল।

তিনি বলেন, চেষ্টা করছি লঞ্চে একটি কেবিন সংগ্রহ করার। কিন্তু পাচ্ছি না। নতুন বউ নিয়ে এভাবে খোলা আকাশের নিচে যেতে কেমন দেখায়! আর একটা দিন পরে লকডাউন দিলে আর সমস্যা হত না। রাসেল বলেন, না পারলাম কোরবানির মাংস খেতে, না পারলাম বিয়ের অনুষ্ঠানটা করতে।

এর আগে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ১ জুলাই থেকে দেশব্যাপী কঠোর লকডাউন জারি করে সরকার। এরপর এ লকডাউন ১৪ জুলাই পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। এর মধ্যে ঈদুল আজহার চাঁদ দেখা যাওয়ায় গরু ব্যবসায়ী এবং অর্থনীতির কথা চিন্তা করে ৮ দিনের জন্য ২৩ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন শিথিল করে আবার ১৪ দিনের জন্য কঠোর লকডাউন জারি করে সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনা সংক্রমণে ১৬৬ জনের মৃত্যু

পবিত্র ঈদুল আযহার পরবর্তি সময়ে দেশে করোনা সংক্রমণের ধারাবাহিকতায় গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাসে সারাদেশে আরও ১৬৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৮ হাজার ৮৫১ জনে।

একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে আরও ছয় হাজার ৩৬৪ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৪৬হাজার ৫৬৪ জনে।

আজ শুক্রবার (২৩ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

হ্যাপী ক্লাবের”মিনি ম্যারাথন-২০২১ইং”এর অনুষ্ঠান ও পুরষ্কার বিতরণ

টিটুল মোল্লা।।।বিশেষ প্রতিনিধি।।   

ফরিদপুর সদরের মুরারীদহ গ্রামে সেচ্ছাসেবী সংস্থা “হ্যাপী ক্লাব”এর সদস্যদের মাঝে”মিনি ম্যারাথনল-২০২১ইং” অনুষ্ঠানসহ অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

 

বৃহস্পতিবার সকালে”হ্যাপী ক্লাবের “মিনি ম্যারাথন-২০২১ইং”এর অনুষ্ঠানটি ফরিদপুর সদরেই মুরারিদহ গ্রামের মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

প্রতি বছরই “হ্যাপী ক্লাব” এই সংস্থার সদস্যরা সবাই মিলে একসাথে স্বতঃস্ফূর্ত আর আনন্দের সাথেই এই প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানটি আয়োজন করে থাকেন।

এ বছরেও ২২-০৭-২১ইং (বৃহস্পতিবার) সকালে ক্লাবের ৫৫ জন সদস্য এই প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেন।

“হ্যাপী ক্লাবের এই মিনি ম্যারাথন -২০২১ইং” অনুষ্ঠানে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন মোঃ ওয়াসিম মোল্লা এবং দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন মোঃশাহিন মোল্লা।       

 

বিজয়ীদের  হাতে পুরষ্কার তুলে দেন ওই অনুষ্ঠানেরি বিভিন্ন উদ্যোগক্তা এবং উৎসাহিগনমোঃমাজেদ মেম্বার,৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আমীর হোসেন মাসুদ,মোঃমজিদ মোল্লা,লতিফ মাষ্টার প্রমুখ।

বিজয়ীগন ক্লাবের পক্ষ থেকে যার যার পুরষ্কার গ্রহন করেন। 

“হ্যাপী ক্লাবের এই মিনি ম্যারাথন -২০২১ইং” অনুষ্ঠানে প্রথম স্থান অধিকার কারী মোঃ ওয়াসিম মোল্লা সবাইকে উদ্দেশ্য করে বলেন,

“হ্যাপী ক্লাব”মূলত একটি সংস্থা যার মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন মানবিক কাজসহ অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের যার যেই সমস্যা সেই সমস্যাগুলোর সমাধানের চেষ্টা করে থাকে।

 

গত ইংরেজি ২০১৯ সাল থেকে শুরু করে ২০২০ সাল গিয়ে এখন ২০২১সালটাও প্রায় শেষের দিকে এগিয়ে এসেছি।   

আমরা চাই আমাদের এই” হ্যাপী ক্লাব” সংস্থাটি আরো বহু দূর এগিয়ে যাক।

 

আমাদের এই সংস্থাটি বিভিন্ন সমাজ সেবা,রক্তদান, অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাড়ানো,যার ঘরে খাবারের সমস্যা তাদের জন্য আমাদের সাধ্যের মধ্যে তাদের খাবারের ব্যাবস্থা করা এই ধরনের  সকল সেবা মূলক কাজ করাই আমাদের “হ্যাপী ক্লাব” সংস্থার উদ্দেশ্য।

  

ফরিদপুরবাসী দেখুক এবং জানুক যে ফরিদপুরে

“হ্যাপীক্লাব” নামে একটি মানবিক সংস্থা আছে। যে সংস্থার সদস্যগন সর্বদাই মানুষের মঙ্গলের জন্য, সমাজের বিভিন্ন কল্যানকর কাজের চেষ্টায় থাকে।

 

এ ব্যাপারে ফরিদপুর পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আমির হোসেন মাসুদ এর কাছে জানতে চাইলে জবাবে তিনি বলেন,উদ্যোগক্তা এবং উৎসাহিতকারী হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম এবং পুরষ্কার বিতরণে অংশ গ্রহণ করি তাদের মধ্যে আছেন মোঃমাজেদ মেম্বার, আমি আমীর হোসেন মাসুদ,মোঃমজিদ মোল্লা,লতিফ মাষ্টারসহ মুরারীদহ

গ্রামের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।