শরীয়তপুরে নাজমুল হোসেন নামে এক ভুয়া ডাক্তারকে ২০হাজার টাকা জরিমানা

নিউজ ২৪লাইনঃ
শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় নাজমুল হোসেন নামে এক ভুয়া ডাক্তারকে ২০হাজার টাকা জরিমান করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

মঙ্গলবার (৩১আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৫টার উপজেলার ঘরিষার বাজারে মা-শিশুও ডায়াবেটিস হাসপাতালে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ও নড়িয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার(ভূমি)মুরশেদুল ইসলাম।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা বাণিজ্যিক কেন্দ্র ঘরিষার বাজারের অভিযোন পরিচালনার সময় বাজারে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। ডাক্তাররা তাদের ভয়ে গাঢাকা দেন। বন্ধ হয়ে যায় ওষুধের দোকানগুলো।

এসময় ঘরিষার বাজারের পশ্চিম মাথায় অবস্থিত মা-শিশুও ডায়াবেটিস হাসপাতালে জরুরি বিভাগের ডাক্তার নাজমুল হোসেন জরুরি কয়েকজন রোগীকে তিনি নিজেই চিকিৎসা করছেন। পরে তার ডাক্তারের সাটির্ফিকেট আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি তা দেখাতে অপারগ হন।

পরে ভ্রাম্যমান আদালত তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে সর্তক করে ছেড়ে দিয়েছেন। এবং তার ডাক্তার লেখা (বিভিন্ন রোগে অভিজ্ঞ ডাক্তার উল্লেখিত) সাইনবোর্ডটি ফেলে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান, দীর্ঘদিন ধরে নাজমুল হোসেন নিজেকে এমবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে চিকিৎসা করছিল। এছাড়া নাক, কান, গলা, হাড় এবং মা ও শিশু রোগসহ বেশকিছু বিভাগে বিশেষজ্ঞ বলে পরিচয় দিয়ে আসছিল। সে নড়িয়া উপজেলায় মা-শিশুও ডায়াবেটিস হাসপাতালে বসবাস করছিল।

ভুল চিকিৎসা দেওয়া এবং চিকিৎসক হিসেবে কোনও অনুমোদিত কাগজপত্র না থাকায় তাকে বিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া সে যেই হাসপাতালে ছিল সেখানে সতর্ক করা হয়েছে এবং মুচলেকাও নেওয়া হয়েছে।
সুএঃ বার্তা বাজার

শরীয়তপুরে এক কোটি ৬০ লাখ টাকার সেতুতে উঠতে একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো

নিউজ ২৪লাইনঃ
শরীয়তপুর ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়নে খালের ওপরে এক কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। সেতুটির দুই পাশে কোনও সংযোগ সড়ক নেই। এখন সেতুর উপরে উঠতে বাঁশের সাঁকোই একমাত্র ভরসা। সখীপুরের উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়ন ২ ও ৪ নং ওয়ার্ডের ঢালীকান্দি গ্রামের চেয়ারম্যান স্টেশন থেকে তারাবুনিয়া স্টেশন যাওয়ার পথে খালের ওপর এই সেতু। এতে স্থানীয় সাত গ্রামের মানুষকে ভীষণ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানায়, চার বছর ধরে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনও সংযোগ সড়ক তৈরি হয়নি। তাহলে সেতু বানিয়ে লাভ কী! এই সেতু তাদের কোনও কাজে আসছে না।শরীয়তপুর ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়নে খালের ওপরে এক কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। সেতুটির দুই পাশে কোনও সংযোগ সড়ক নেই। এখন সেতুর উপরে উঠতে বাঁশের সাঁকোই একমাত্র ভরসা। সখীপুরের উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়ন ২ ও ৪ নং ওয়ার্ডের ঢালীকান্দি গ্রামের চেয়ারম্যান স্টেশন থেকে তারাবুনিয়া স্টেশন যাওয়ার পথে খালের ওপর এই সেতু। এতে স্থানীয় সাত গ্রামের মানুষকে ভীষণ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানায়, চার বছর ধরে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনও সংযোগ সড়ক তৈরি হয়নি। তাহলে সেতু বানিয়ে লাভ কী! এই সেতু তাদের কোনও কাজে আসছে না।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এ সেতু নির্মাণ করা হয়। সে সময় এক কোটি ৬০ লাখ ১২ হাজার ৪৯৭ টাকা ব্যয় হয়েছিল সেতুটি নির্মাণে। নির্মাণের কয়েক বছর পরই বর্ষায় বন্যার পানিতে সেতুটির দু পাশের সংযোগ সড়কের মাটি সরে যায়। ফলে সেতুটি ব্যবহারের উপযোগিতা হারায়।

তারা অভিযোগ করে আরও জানান, কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণেই এই পরিস্থিতি হয়েছে। ঠিকাদারেরা দায়সারাভাবে বালু দিয়ে এক প্রান্তে সেতুতে ওঠার সংযোগ সড়ক দিলেও অপর প্রান্তে ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে নামতে বা উঠতে হয়। এই অবস্থায় চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাজারো মানুষ। সেতুর পশ্চিমে বিস্তীর্ণ চরাঞ্চলের ফসলি জমি। সেই চরে বসবাস করে কয়েক শ’ পরিবার। এসব পরিবারের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া করতে আসতে হয় সেতুর পূর্ব পাশে চেয়ারম্যান বাজার প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ে। প্রতিদিন স্কুল শিক্ষার্থী, রোগীসহ হাজার হাজার মানুষ এ পথ দিয়ে যাতায়াত করেন।

স্থানীয়, দেলোয়ার হোসেন, মিজানুর রহমান, সালাম সরদার জানান, ব্রিজটি করার ১১ মাস পরেই চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে যায়। এলাকার ৮০ শতাংশ মানুষ কৃষিকাজ করেন। মৌসুমি ফসল উপজেলা সদরসহ জেলায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেতুটি ব্যবহার করতে না পারায় ১০ কিলোমিটার রাস্তা বেশি ঘুরতে হয়। ফলে সময় ও অর্থ দুটিই অপচয় হচ্ছে।

উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউনুছ সরকার ফোনে বলেন, ‘এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলেন।’ এ কথা বলে তিনি ফোন কেটে দেন।ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মো. আক্তার হোসেন বলেন, ‘নদীতে সংযোগ সড়কটি ভেঙে গেছে। আমরা এ প্রকল্পের প্রজেক্ট অনুমোদনের জন্য ফরিদপুর থেকে ঢাকা পাঠিয়েছি। অনুমোদন পেলে বর্ষার শেষে কাজ শুরু করা যাবে।’

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসিফ বলেন, ‘ব্রিজটি নির্মাণ হয়েছে পাঁচ-ছয় বছর আগে। বর্ষার সময় বন্যার পানিতে দু পাশের মাটি ভেঙে যায়। এ প্রকল্পের চাহিদা দেওয়া হয়েছে। অনুমোদন পেলেই বর্ষার শেষে কাজ ধরা হবে।’

জামিন পেলেন আলোচিত সেই পরীমণি

নিউজ ২৪লাইনঃ
বিনোদন ডেস্ক- ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত চিত্রনায়িকা শামসুন্নাহার স্মৃতি ওরফে পরীমণির বিরুদ্ধে বনানী থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) দুপুরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালত নারী, অভিনেত্রী ও অসুস্থতা বিবেচনায় ৫০ হাজার টাকা মুচলেকায় পরীমণির জামিন মঞ্জুর করেন।

এদিন পরীমণির পক্ষে জামিন শুনানি করেন তার আইনজীবী মজিবুর রহমান,নীলাঞ্জনা রিফাত সুরভী,কামরুজ্জামান চৌধুরীসহ আরও অনেকে। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে তার বিরোধিতা করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আদেশ দেন।

মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রোববার (২৯ আগস্ট) উচ্চ আদালতের নির্দেশে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ পরীমনির জামিন শুনানির জন্য আজ (৩১ আগস্ট) দিন ধার্য করেন।

গত ২২ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে পরীমনির জামিন আবেদন করেছিলেন তার আইনজীবী মজিবুর রহমান। তখন আদালত শুনানির জন্য ১৩ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেছিলেন। পরে তার আইনজীবীরা এ নিয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন।

৪ আগস্ট বিকেলে বনানীর ১২ নম্বর রোডের পরীমনির বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। এ সময় তার বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মদ, মদের বোতলসহ অন্য মাদকদ্রব্য জব্দ করে।

পরের দিন বনানী থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে পরীমনিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে প্রথমে চার দিন, পরে ১০ আগস্ট দুই দিন ও ১৯ আগস্ট এক দিনের রিমান্ড দেয় আদালত। রিমান্ড শেষে ২১ আগস্ট আবার তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

পরীমনি এখন আটক আছেন গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে। জামিন শুনানি হলেও আজ পরীমনিকে আদালতে আনা হয়নি।

ইতালির রোমে বাংকার সাপ্তাহিক ব্যবসায়ী সমিতির” সৈয়দ সুমন কে আহ্বায়ক করে ২১ বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা

অনলাইন ডেক্সঃ
ইতালির রোমে বাংকার (সাপ্তাহিক) ব্যবসায়ী সমিতির আহ্বায়ক কমিটি
সৈয়দ সুমন কে আহ্বায়ক ও মিজানুর রহমান,যুগ্ম আহবায়ক করে ২১ বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়
ইতালির রোমে বাংকার ব্যবসায়ীদের নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে।শুধু মাত্র যারা সাপ্তাহিক বাজারে বিভিন্ন ব্যবসা করেন তাদের নিয়ে এই সমিতি গঠন করা হয়। তোরপিনাতারা সুন্দরবন রেস্টুরেন্টে ব্যাংকার (সাপ্তাহিক) সমিতি সফল ব্যবসায়ীদের আলোচনার সভার মাধ্যমে সকলের সম্মতিক্রমে সৈয়দ সুমন কে আহ্বায়ক করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া যুগ্ম আহবায়ক হলেন মিজানুর রহমান,লিটন সরকার,এম এ জলিল, কামাল হোসেন,মোঃ মান্নান, ফজলুল করিম খোকন ,মোহাম্মদ আলমগীর ,মোতালেব কামাল। সদস্য সচিব করা হয় রোমান জাননাহ। আহবায়ক কমিটির সদস্য করা হয় জুলহাস সর্দার ,দেলোয়ার মোল্লা ,সজল হাওলাদার , সাদ্দাম হোসেন, দীন মোহাম্মদ, তুহিন, রুবেল, শহিদুল ,আমির মাতব্বর ,শিহাব উদ্দিন বাবুল, এমডি হারুন।

মাঝরাতে প্রেমিকাকে জন্মদিনের উপহার দিতে প্রেমিকার বাড়িতে ঢুকে চুরির অভিযোগে ধরা পড়ে ধোলাই খেলেন এক প্রেমিক

নিউজ ২৪লাইনঃ

ফেনীর সোনাগাজীতে মাঝরাতে প্রেমিকাকে জন্মদিনের উপহার দিতে প্রেমিকার বাড়িতে ঢুকে চুরির অভিযোগে ধরা পড়ে ধোলাই খেলেন এক প্রেমিক। প্রেমিকার পরিবার প্রেমিক হামিদুর রহমান আজাদকে রাতে আটক করে রশি দিয়ে বেঁধে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘চোর’ উল্লেখ করে ছড়িয়ে দেয়।

রোববার (২৯ আগস্ট) রাতে উপজেলার বগাদানা ইউনিয়নের তাকিয়া বাজার সংলগ্ন পাইকপাড়া গ্রামের তাকিয়া আশ্রাফ আলী কবিরাজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই পরিবারের পক্ষ থেকে পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার প্রেক্ষিতে প্রেমিক হামিদুর রহমান আজাদ ও প্রেমিকার ভাই দীন মোহাম্মদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের দুইজনকে সোমবার (৩০ আগস্ট) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার বগাদানা ইউনিয়নের আবদুল হাইয়ের কন্যা ও এক পুত্রকে প্রায় পাঁচ বছরর আগে থেকে প্রাইভেট পড়াতেন হামিদুর রহমান আজাদ। সে সূত্রে, গত দুই বছর থেকে আবদুল হাইয়ের স্কুল পড়ুয়া কন্যার (নবম শ্রেণি) সাথে আজাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রেমিকার যোগসাজশে ২৯ আগস্ট রাত দুইটায় ওই ছাত্রীকে জন্মদিনের উপহার দিতে ঘরের ভেতরে ঢুকেন প্রেমিক আজাদ। প্রেমিকার পিতা আবদুল হাই ও তার ভাই দীন মোহাম্মদ টের পেয়ে আজাদকে আটক করে বেধড়ক পিটিয়ে ঘরের সামনে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে রাখে। এরপর ছবি তুলে দীন মোহাম্মদের ফেসবুক আইডিতে খুঁটিতে বাঁধা আজাদের ছবি পোস্ট করেন।

ফেসবুকে দেয়া পোস্টে তিনি উল্লেখ করেন ‘তাকিয়া বাজারে আশ্রাফ আলী কবিরাজ বাড়িতে ধরা খেয়েছে স্বর্ণ চোর। রাত তিনটায় দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকেছে, পুলিশ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ।’

খবর পেয়ে পুলিশ প্রেমিক আজাদকে উদ্ধার করে। এরপর সোনাগাজী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়।

মেয়ের বাবা আবদুল হাই অভিযোগ করেন, দীর্ঘ দুই বছর যাবত আজাদ তার স্কুল পড়ুয়া কন্যাকে প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাবে উত্যক্ত করে আসছে। তিনি ও তার মেয়ে বিয়ে ও প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আজাদ রোববার রাতে সুকৌশলে ঘরে ঢুকে তার কন্যাকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তিনি ও তার ছেলে মিলে আজাদকে আটক করে রশি দিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে রাখেন। তার ছেলের সাথে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে তার ছেলের লাঠির আঘাতে আজাদের মাথা ফেটে যায়। তিনি আজাদকে একমাত্র আসামি করে তার স্কুল পড়ুয়া কন্যাকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

অপর দিকে আজাদের পিতা বেলাল হোসেন অভিযোগ করেন, আবদুল হাইয়ের কন্যাকে প্রাইভেট পড়ানোর সূত্র ধরে তার ছেলের সাথে ওই স্কুল ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। রোববার মেয়েটির জন্মদিন ছিল। মেয়েটি বিষয়টি তার ছেলেকে জানালে সে দুই প্যাকেট লজেন্স ও একটি কলম উপহার নিয়ে তাঁর বাড়িতে যায়। রাতে সেখানে খাওয়াদাওয়াও করে। কিন্তু, গভীর রাতে তার ছেলেকে নির্মমভাবে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে বেঁধে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে আহত করে আব্দুল হাইয়ের পরিবার। দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে কথিত স্বর্ণ চুরির অভিযোগ এনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবিও ছড়িয়ে দেয়। তাই তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দীন মোহাম্মদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি সাজেদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে হামিদুর রহমান আজাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে স্কুল ছাত্রীর বাবা। আর খুঁটির সাথে বেঁধে ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগে দীন মোহাম্মদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছে ছেলের বাবা। তাদের দুইজনকে গ্রেফতার করা
হয়েছে।

আবারো পদ্মা সেতুর পিলারে দিয়ে দিল ধাক্কা

নিউজ ২৪লাইনঃ
এবার পদ্মা সেতুর ২ ও ৩ নম্বর পিলারের মাঝখানে ‘ওয়ান বি’ স্প্যানের সঙ্গে ধাক্কা লেগেছে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের। এতে ফেরির মাস্তুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে শিমুলিয়া ঘাট থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে। তবে দুর্ঘটনার সময় ফেরিতে কোনো যাত্রী বা যানবাহন ছিল না বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিসি) চেয়ারম্যান সৈয়দ মো. তাজুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘সেতু পার হয়ে যাওয়ার সময় ফেরির ফ্ল্যাগ স্ট্যান্ডটি নামানোর কথা। ভুলে এটি নামানো হয়নি। সেতুর স্প্যানের সঙ্গে লেগে ফ্ল্যাগ স্ট্যান্ডটি একটু বাঁকা হয়ে গেছে। সেতুর স্প্যানের কিছুই হয়নি। ফেরিও ঘাটে চলে গছে।’

মাদারীপুরের বাংলাবাজার থেকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়ায় নৌপথে চলাচলে চারবার পদ্মা সেতুর পিলারে আঘাত করে ফেরি। এর মধ্যে ২০ ও ২৩ জুলাই ১৬ ও ১৭ নম্বর পিলারে এবং ৯ ও ১৩ আগস্ট ১০ নম্বর পিলারে আঘাত করা হয়। থানায় জিডি, তদন্ত কমিটি গঠন, ফেরি চালকদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয় সেসব ঘটনায়।

এসএসসি-৯৭ এইসএসসি-৯৯ ব্যাচ কক্সবাজারের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি সম্পন্ন

নবচেতনা মানবিক উন্নয়ন ফাউন্ডেশন যশোরের উদ্যোগে এবং এসএসসি ৯৭/এইচ এইচ ৯৯ ব্যাচের অংশগ্রহনে ব্যাচের সকলের সন্তানদের নামে স্থায়ী ভাবে রোপন করা হল ১০০ টি নারকেল গাছ। যা আজ কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার ইনানী সাগর সৈকতে রোপন করা হয়।

৯৭/৯৯ ব্যাচের কক্সবাজার জেলার সকল উপজেলার বন্ধুরা এই বনায়ন কর্মসূচীতে যোগদান করেন।  উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নবচেতনার প্রতিষ্ঠতা তুষার চক্রবর্তী,  আবু শহীদ এবং কক্সবাজার জেলার ৯৭/৯৯ ব্যাচের বন্ধুরা।

তুষার চক্রবর্তী বলেন, নবচেতনার উদ্যোগ এবং ৯৭/৯৯ ব্যাচের অংশগ্রহনে কক্সবাজারের বিভিন্ন সৈকতে মোট ৫০০ নারকেল গাছ রোপনের লক্ষ নিয়ে এগোচ্ছে এই ক্যাম্পেইন। তিনি আরো বলেন এই গাছ ৯৭/৯৯ ব্যচের একটি স্মৃতিচিহ্ন যেমন হবে, তেমনি পরিবেশ এবং জৈব বৈচিত্র রক্ষায় কিছুটা সহায়ক হবে। তিনি বলেন সবুজকে চিরস্থায়ী করতেই তাদের এই উদ্যোগ এবং সকলকে সবুজ বাংলাদেশ গড়তে আহ্বান করেন।

৯৭/৯৯ ব্যাচের পক্ষে এ্যাড . কামরুল হাসান বলেন,  কক্সবাজার জেলার বনায়নের ঘাটতি পূরনে গাছ রোপন যেমন করতে হবে তেমনি গাছ কাটাও বন্ধ করতে হবে, সবুজ পৃথিবী গড়তে তাদের এ উদ্যোগ সফল করতে তিনি জেলা প্রশাসন কে গাছ রোপনের স্থান দেবার জন্য ধন্যবাদ জানান।

উখিয়ার ৯৭/৯৯ ব্যাচের পক্ষে মোঃ নুরুল হোসাইন এ কার্যক্রম সারাদেশ ব্যাপী ছড়িয়ে দিতে দেশের সকল বন্ধুদের আহ্বান করেন।

আরো বক্তব্য রাখে রামুর আদনান,উখিয়ার ফরিদ, ছলিম, মালেক, আবছার,আমিন, আবু, ককসবাজারের নাসির প্রমুখ।

1 2 3 24