বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতে শরীয়তপুর অাওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের অাহবায়ক কমিটি

শেখ নজরুল ইসলাম
নিউজ২৪লাই:
গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত ও শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন বাংলাদেশ অাওয়ামী মৎস্যজীবীলীগ শরীয়তপুর জেলা শাখার অাহবায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দরা ৷

ত্রিশ অক্টোবর শনিবার দুপুরে জেলা মৎস্যজীবীলীগের অাহবায়ক এসএম শফিকুল ইসলাম স্বপন সরকার, সদস্য সচিব ফেরদৌস রহমান রুপক ও যুগ্ন অাহবায়ক মোঃ ফারুক মোল্যার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর মাজারে ফুলের শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে নেতারা মাজার জিয়ারত ও মোনাজাতে অংশ নেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুগ্ন অাহবায়ক-মোঃ রফিক কাজী,বি.এম ইলিয়াস,মোঃ সাজলু বেপারী,জয়ন্ত দাস,মোঃ খোকন মোল্যা,মোঃ জাহাঙ্গীর মাল,শ্রী স্যাম সুন্দর দাস,মোঃ ইকবাল হোসাইন ৷ সদস্যদের মধ্যে মোস্তফা বেপারী,আব্দুল লতিফ,মোঃ দাদন সরদার,মোঃ ফারুক অাহমেদ মাদবর,মোঃ ফারুক দেওয়ান,মোঃ মান্নান চৌকিদার,সাঈদুল হক বয়াতী,জিতু হাওলাদার,সুরুজ ছৈয়াল,ফরিদ গাজী,জালাল মল্লিক,সুমন বকাউল,বাচ্চু ঢালী,শাহীন অাহম্মেদ ও শফিকুল ইসলাম প্রমূখ।

মনির হোসেন দর্জি কে ইউপি সদস্য হিসেবে পুনরায় দেখতে চায় ৩নং ওয়ার্ডের জনগন

আমান আহমেদ সজীব // শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার আসন্ন চরসেনসাস ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ডে বিশিষ্ট সমাজসেবক, দানবীর, ধর্মপরায়ন,অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ব্যাক্তি,গরীব দুখী মানুষের আস্থাভাজন, বর্তমান সফল ইউপি সদস্য, সখিপুর থানা যুবলীগ আহ্বায়ক কমিটির সদস্য, সাবেক ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সখিপুর থানা ও সভাপতি চরসেনসাস ইউনিয়ন, শেখ রাসেল সৃতি সংসদ সভাপতি চরসেনসাস ইউনিয়ন, ২য় বারের মত পুনরায় ইউপি সদস্য হিসেবে দেখতে চায় এলাকাবাসী।
তিনি ওই ওয়ার্ডে ৫ বছর ধরে সুনামের সহিত ইউপি সদস্য’র দায়ীত্ব পালন করে আসছেন। তিনি এলাকায় রাস্তা, ঘাট, স্কুল, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ব্যপক উন্নয়ন মুলক কাজ করেছেন এবং হতদরিদ্রদেরকে ভিজিডি, ভিজিএফ, বয়স্কভাতা, বিধবাভাতাসহ সরকারের সকল ধরনের সহায়তা সঠিক ভাবে প্রদান করে জনগনের আস্থা যুগিয়েছেন। সুবিধা বঞ্চিত হয়নি গরীব দুখী মানুষরা।
তিনি বেশ সুনামের সহিত দায়ীত্ব পালন করে আসছেন। ৩নং ওয়ার্ড এর জনগন জানান
তার বিরুদ্ধে কোন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ নেই। তাই তাকে ভোট দিয়ে পুনরায় নির্বাচিত করে যোগ্য পাত্রে অন্ন দান করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন একাধিক ভোটাররা।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য তাকে ভোট প্রদান করে বিজয় করার অঙ্গিকার করে জোট বেধেছে অধিকাংশ ভোটাররা। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকায় মসজিদ,মাদ্রাসা, রাস্তা,ঘাট,শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ব্যপক উন্নয়ন হবে।
এছাড়াও মাদক, সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ মুক্ত হবে। গরীব দুখী মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল অক্ষুন্ন থাকবে। আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে তাকে নিয়ে পুনরায় ভাবতে শুরু করেছে ভোটাররা। তাকে ছাড়া অন্য কোন প্রার্থীকে ভাবতে পারছেনা ভোটাররা। চায়ের দোকান, হাট-বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে প্রতিদিন তার গুনকীর্তন করছে জনগন। তাকে পুনরায় ইউপি সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে ভোটাররা ইতিমধ্যে বিভিন্ন জল্পনা কল্পনা শুরু করেছে।

তিনি বর্তমানে এলাকায় ধর্মীয় অনুষ্ঠান,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সকল ধরনের সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করে যাচ্ছে এবং এলাকায় প্রতিটি উন্নয়ন মুলক কাজে তার অবদান রয়েছে। এছারাও তিনি এলাকায় মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ,বাল্যবিবাহসহ সকল অপরাধমুলক বিষয়ে প্রতিবাদী ব্যাক্তি নামে সুপরিচিত হয়েছেন।

অসহায় মানুষরা তাকে ডাক দিলেই হাতের নাগালে পান। করোকালীন সময়ে তিনি গরীব দুখী মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন সময় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে মানবতার ফেরীওয়ালা উপাধী পেয়েছেন। একাধিক ভোটাররা জানান তিনি সৎ, মার্জিত, শিক্ষিত, ভদ্র স্বভাবী,প্রতিবাদী হওয়ায় এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে তার বিকল্প নেই।তিনি ইউপি সদস্য হিসেবে পুনরায় নির্বাচিত হলে সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে।

রাস্তা ঘাট. স্কুল, মাদ্রাসা সহ সকল প্রতিষ্ঠানের ব্যপক উন্নয়ন হবে এছাড়াও তিনি যোগ্যতার মাপকাঠীতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ প্রাপ্ত সকল পদেই সুনামের সহিদ দায়ীত্ব পালন করে আসছেন। এক প্রবীন শিক্ষক জানান তিনি পুনরায় নির্বাচিত হলে কোন প্রভাবের কারনে অন্যায়কারীরা পার পাবেনা।
সমাজের অপরাধের হার পুরোপুরি কমে যাবে।

চরসেনসাস ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য মোঃ মনির হোসেন জানান তিনি সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য সকল ভোটারদের বাড়ীতে বাড়ীতে গিয়ে পুনরায় ভোট প্রার্থনা ও দোয়া কামনা করছেন। ভোটারদের মধ্যে তিনি পুনরায় ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন।
জনসমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন। অবাধ, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ন ভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে পুনরায় শতভাগ বিজয় নিশ্চিৎ বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বর্তমান ইউপি সদস্য মনির হোসেন সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য পুনরায় ইউপি সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম এমপি মহোদয়ের সু-দৃষ্টি কামনা ও দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মিসেস পান্না সরদার সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেছেন

//শরীয়তপুর প্রতিনিধি| আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আলাওয়ালপুর ইউনিয়নের নির্বাচনী প্রচারণা ও ৯ টি ওয়ার্ড এ সাধারণ মানুষের খোজ খবর নিচ্ছে।

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গোসাঁইরহাট উপজেলার আলাওয়ালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন মিসেস পান্না সরদার।

জনসেবার কারণে সাধারণ মানুষের কাছে তিনি অত্যন্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে অল্প সময়ে সু-পরিচিতি লাভ করেছেন এবং একজন উদীয়মান মহিলা সমাজ সেবক হিসেবে । দীর্ঘদিন ধরে তিনি নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন সাধারণ মানুষের সেবায় । সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করেছেন সাধারণ মানুষের । ভয়াবহ ঘুর্ণিঝড় আম্পান ও মহামারী করােনায় ছিলেন সাধারণ মানুষের সাথে । করােনার এই মহা দুর্যোগেও তিনি শুরু থেকে তার সাধ্য অনুযায়ী সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযােগিতা করে গেছেন । তিনি নিজেকে মানুষের সেবায় উৎসর্গ করে দিতে চান ।

স্থানীয়রা বলেন তিনি তাদের সকল বিপদে আপদে এগিয়ে আসেন । রাত – দিন যখনই চাই আমরা তাকে পাশে পাই । আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে উন্নয়নের স্বার্থে তারা মিসেস পান্না সরদার কে আলাওয়ালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চাই ।

আলাওয়ালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মিসেস পান্না সরদার বলেন, আমাকে যদি জনগণ তাদের সেবা করার সুযােগ দেয়, তাহলে আমি নির্বাচিত হয়ে এই আলাওয়ালপুর ইউনিয়নকে একটি রােল মডেল ইউনিয়ন হিসেবে উপহার দিবাে এলাকাবাসীকে। আমার স্বপ্ন এলাকাবাসীর সেবা করা ও সুখে দুঃখে পাশে থাকা।

চাচির সাথে প্রেম চাচা দেশে ফিরছেন খবর মানতে পারেননি ভাতিজা, চাচি গ্রেপ্তার

নিউজ২৪লাইন:
রাজধানীর মিরপুরে লিমন ফকির (২৫) নামের এক তরুণের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করেছেন ওই তরুণের পরিবারের সদস্যরা। সেই মামলায় নিহতের চাচিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ বলছে, ভাতিজার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল চাচির। চাচা দেশে আসার খবরে সেই সম্পর্ক অস্বীকার করেন চাচি। এ কারণে ভাতিজা লিমন আত্মহত্যা করতে পারেন।

শনিবার (৩০ অক্টোবর) বিকেলে মিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাজিরুর রহমান বলেন, ২৮ অক্টোবর দিনগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে পূর্ব মনিপুরের ১১৩৩ নম্বর বাসা থেকে লিমন ফকিরের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই দিন ভোরের দিকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের জরুরি বিভাগে তার মরদেহ পাঠানো হয়।

ওসি আরও বলেন, শিগগির মালদ্বীপ থেকে লিমনের চাচা দেশে আসছেন, চাচি এমন সংবাদ ভাতিজা লিমনকে জানান। চাচি আর ভাজিতার সঙ্গে দেখা করতে যান না। বিষয়টি লিমন মেনে নিতে পারেননি। থাই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিহতের মামাতো ভাই শাহরিয়া রহিম জানান, দুই মাস আগে লিমন ঢাকায় আসেন। মিরপুর মনিপুর এলাকায় একটি বাসায় সাবলেটে থাকতেন। ওই বাসায় লিমনের মালদ্বীপ প্রবাসী ৬ নম্বর চাচার স্ত্রী যাওয়া-আসা করতেন। পাশের লোকদের কাছে তারা ‘ভাইবোন’ পরিচয় দিতেন।

মা-বাবার কবর জিয়ারত করলেন শাহরুখ খান

নিউজ২৪লাইন:
শাহরুখ খান বেড়ে উঠেছেন দিল্লিতে। এটা তার জন্মের শহর। ব্যস্ত রুটিনের মধ্য থেকে সময় বের করে

গিয়েছিলেন সেই দিল্লিতে, যেখানে তার শৈশব পড়ে আছে। দিল্লিতে গিয়ে প্রথমে গিয়েছিলেন মা-বাবার কবর জিয়ারত করতে।

অভিনেতার এই ব্যক্তিগত মুহূর্ত ধরা পড়ে পাপারাৎজিদের ক্যামেরায়। সাদা শার্ট, কালো প্যান্টে দেখা গিয়েছিল এই অভিনেতাকে। রুমাল দিয়ে মাথা ঢেকেছিলেন কিং খান। ভারতীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে এমনটি উঠে আসে।

এর আগেও বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে মা-বাবাকে নিয়ে কথা বলতে দেখা যায় শাহরুখকে। অভিনেতার বাবা তাজ মহম্মদ খান পেশোয়ার থেকে ভারতে এসেছিলেন। শাহরুখের বয়স যখন ১৫ বছর, ক্যান্সারে বাবাকে হারান তিনি। দীর্ঘ অসুস্থতার পর ১৯৯০ সালে কিং খানের মাও এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান

আকস্মিকভাবে মা-বাবার চলে যাওয়া সে সময় মেনে নিতে পারেননি তিনি। জীবনে তার যে শূন্যতা তৈরি হয়েছিল, অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি তা পূরণ করতে চেয়েছিলেন। তখনই বড় পর্দায় অভিনয়ের সুযোগ আসে তার। তাই অভিনয়কে শাহরুখ নিছক অভিনয় হিসেবে দেখেন না। এই পেশা তার অনুভূতি প্রকাশ করার মাধ্যমও বটে।

সূত্র : আনন্দবাজার

বড় স্ত্রী প্রার্থী, ছোট দুই স্ত্রীকে নিয়ে গণসংযোগে স্বামী

নিউজ২৪লাইন:

ছোট দুই স্ত্রীকে নিয়ে গণসংযোগে স্বামী। ইনসেটে বড় স্ত্রী শাহীনা বেগম – ছবি – নয়া দিগন্ত

পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে বড় সতিনকে নির্বাচনে জয়ী করতে ছোট দুই সতিনকে গণসংযোগ করতে দেখো গেছে। উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের মালিগাঁও মেহেরপাড়া এলাকার জনৈক মৃত সহবত আলী’র পুত্র মো. দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী তারা।

দেলোয়ার পেশায় একজন মৎস্যচাষী। ২০০৪ সালে উপজেলার সর্দারপাড়া এলাকার দশম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ শাহীনা বেগমকে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে ১ ছেলে, ১ মেয়ে সন্তান রয়েছে। ২০১১ সালে উপজেলার নলপুখুরী এলাকার দশম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ আকলিমা বেগমকে বিয়ে করলে আরো ১ ছেলে সন্তান জন্ম হয়। এরপর ২০১৬ সালে উপজেলার রাখালদেবী হাটের এসএসসি পাশ করা মেয়ে মোছাঃ রত্না আক্তারকে বিয়ে করেন এই দেলোয়ার হোসেন। বিয়ের পরে রত্নার কোল জুরে আসে আরো এক ছেলে সন্তান।

তিন স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে সহ মোট ৮ জনকে নিয়ে তিন রুম বিশিষ্ট একটি বাড়ি করে একই হাড়িতে খেয়ে এক সাথেই খুব ভালোভাবে সংসার চালিয়ে আসছেন দেলোয়ার।

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ৩য় ধাপের তফসীলে আটোয়ারী উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে দেলোয়ার পরিবারের সাথে আলোচনা করে প্রথম স্ত্রী মোছাঃ শাহীনা বেগমকে রাধানগর ইউনিয়নের (৪,৫,৬) সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য পদে নিবার্চন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

তারই ধারাবাহিকতায় দুই সতিন ও স্বামীর গণসংযোগ এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন । দ্বিতীয় স্ত্রী মোছাঃ আকলিমা জানান, আমরা ৩ জন সতিন নয়, আমরা ৩ বোন একই পরিবারে ১ স্বামী নিয়ে ঘর সংসার করি। আমাদের ৩ জনকেই সমান চোখে দেখে দেলোয়ার। দেলোয়ারের অর্থ সম্পদ তেমন না থাকলেও তার সুন্দর একটা মন আছে। আর এই সুন্দর মনের মানুষকে নিয়ে আমরা তিন সতিন সুখের সংসার করছি।

তৃতীয় স্ত্রী মোছাঃ রত্না আক্তার জানান, আমাদের পরিবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমাদের বড় বোন মোছাঃ শাহীনা বেগমকে ভোটে প্রার্থী করে এক সাথে গণসংযোগ করছি। আমাদের বোনকে জয়যুক্ত করেই ঘরে ফিরবো ইনশাআল্লাহ।

স্বামী দেলোয়ার হোসেন বলেন, এত বড় সংসার চালিয়েও আমি এলাকার মানুষের জন্য ইতোপূর্বে অনেক কাজ করেছি। আর আমার প্রথম স্ত্রী শাহীনা এলাকার মানুষের কাছে খুব জনপ্রিয় একজন নারী। সে ক্ষেত্রে মানুষ আমার বা তার সাথে বেইমানি করতে পারে না। রাধানগর ইউনিয়নের ৪,৫,৬ নং ওর্য়াডের সন্মানিত ভোটারগণ শাহীনাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে বলে মনে প্রাণে বিশ্বাস করি।

তফসিল ঘোষণা অনুযায়ী ২ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ, ৪ নভেম্বর বাছাই ও ১১ নভেম্বর প্রত্যাহারের শেষ সময়। ভোট গ্রহণ হবে আগামি ২৮ নভেম্বর।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নাঙ্গলকোট উপজেলা শাখার শুরা অধিবেশন সম্পন্ন

নিউজ২৪লাইন:
উপজেলা সভাপতি মাওলানা বাকি বিল্লাহ সাহেবের সভাপতিত্বে জয়েন্ট সেক্রেটারি হাফেজ মোহাম্মদ ইসমাঈল হোসেন সাহেবের সঞ্চালনায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নাঙ্গলকোট উপজেলা শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত প্রোগ্রামে কোরআনে পাক থেকে তেলাওয়াত করেন যুব নেতা হাফেজ মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন। উপজেলা দায়িত্বশীলদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আই এ বি নাঙ্গলকোট উপজেলা শাখার সাবেক সভাপতি মাওলানা মোজাম্মেল হোসাইন সাহেব, সেক্রেটারি, মাষ্টার মনির আহমেদ ভুঁইয়া,সাংগঠনিক সম্পাদক, হাফেজ মোহাম্মদ উল্লাহ মাহমুদ। সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা সাকের হোসাইন, দফতর সম্পাদক হাফেজ মোহাম্মদ আফাজ উদ্দিন। উপজেলা ছাত্র আন্দোলনের সভাপতি, সহ সভাপতি, সাংগঠনিক সম্পাদক, উপজেলা শ্রমিক আন্দোলনের সভাপতি, সেক্রেটারী,সাংগঠনিক সম্পাদক। যুব আন্দোলনের সভাপতি, সেক্রেটারি, সাংগঠনিক সম্পাদক সহ প্রতিটা ইউনিয়ন থেকে আগত সভাপতি, সেক্রেটারি, সাংগঠনিক সম্পাদকবৃন্দ।

1 2 3 12