ভাসানচরে জাতিসংঘ:স্থানান্তরিত রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করা সহজ হবে বললেন জেসমিন প্রেমা

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) মানবিক সহায়তা দেবে জাতিসংঘ। এজন্য জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে।

 

শনিবার (৯ অক্টোবর) সচিবালয়ে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন ও বাংলাদেশে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর প্রতিনিধি ইয়োহানেস ভন ডার ক্লাও চুক্তিতে সই করেন।

 

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম।

 

 

অনুষ্ঠানে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের সহায়তা দিয়ে আসছে জাতিসংঘ। আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। আমরা রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর করেছি। বিভিন্ন এনজিও সেখানে রোহিঙ্গাদের চাহিদাগুলো পূরণ করছে। জাতিসংঘ সঠিক সময়ে ভাল একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমি মনে করি এটা ভাসানচরে বাংলাদেশ সরকারকে রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখতে সহযোগিতা করবে। এটা আমাদের জন্য বড় একটি স্বস্তির বিষয়।’

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি, এ চুক্তির পর জাতিসংঘ ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তার দায়িত্ব নেবে।’

 

 

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব বলেন, ‘বেসামরিক প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ভাসানচরে মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালিত হবে। বাংলাদেশ সরকার ও ইউএনএইচসিআর-এর যৌথ উদ্যোগে ‘বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের (এফডিএমএন) খাদ্য ও পুষ্টি, সুপেয় পানি, পয়ঃনিস্কাশন, চিকিৎসা, মিয়ানমার কারিকুলাম ও ভাষায় এফডিএমএনদের অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা এবং জীবিকায়নের ব্যবস্থা করা হবে।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকার এখানে বসবাসরত রোহিঙ্গা ও কর্মরত জাতিসংঘ এবং এর সহযোগী সংস্থা ও দেশিয় ও আন্তর্জাতিক এনজিও কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয় দেখাশুনা করবে। এছাড়া, ভাসানচরে এফডিএমএনদের বসবাসের কারণে পাশ্ববর্তী স্থানীয় এলাকা ও জনগণের উপর যে প্রভাব পড়বে তা নিরসনে জাতিসংঘের সংস্থাগুলো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

 

 

‘বর্তমানে বাংলাদেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আছেন। জনসংখ্যার ঘনবসতি ও পরিবেশের ঝুঁকি কমানোর লক্ষ্যে সরকার তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে বসবাসের ব্যবস্থা করেছে। গত ৩ ডিসেম্বর থেকে গত ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১৮ হাজার ৮৪৬ জন মিয়ানমারের নাগরিকদের ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছে’ যোগ করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব।

 

সচিব বলেন, ‘আমরা আশা করছি, আগামী তিন মাসে অর্থাৎ নভেম্বর, ডিসেম্বর ও জানুয়ারির মধ্যে আরও ৮০ হাজার মিয়ানমারের নাগরিককে আমরা ভাসানচরে নিয়ে যেতে পারবো। সেখানে থাকা ১৮  হাজারোধিক রোহিঙ্গাদের এনজিওদের সহায়তায় সরকার দেখভাল করছে। স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক এনজিওদের সহায়তায় আমরা এ কাজগুলো করছি।’

 

কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও মানবিক সহায়তায় জাতিসংঘের অংশগ্রহণ বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিবকে সভাপতি করে গত ৩ জুন একটি কমিটি দেওয়া হয়েছিল জানিয়ে মো. মোহসীন বলেন, ‘এ কমিটি জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে ফলপ্রসূ আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ ভাসানচরে মানবিক সহায়তা দিতে সম্মত হয়। দু’পক্ষের সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে এমওইউর খসড়া করা হয়েছে। সরকার তা অনুমোদন দিয়েছে।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘অতি শিগগিরই এ সমঝোতা স্মারকের আলোকে অপারেশন প্ল্যানসহ বিভিন্ন কার্যক্রম শুরু করা হবে। মিয়ানমারের নাগরিকদের অবস্থানের কারণে বাংলাদেশে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে, এর একমাত্র সমাধান তাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন।’ প্রত্যাবসান কার্যক্রম ফলপ্রসূ করা এবং পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে অনুরোধ জানান সচিব।

 

বাংলাদেশে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর প্রতিনিধি বলেন, ‘এ এমওইউ রোহিঙ্গাদের জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা দেওয়ার নীতি দ্বীপে (ভাসানচর) থাকাদের জন্য প্রতিষ্ঠিত হলো। কক্সবাজারের মতো ভাসানচরেও জাতিসংঘ রোহিঙ্গাদের জরুরি প্রয়োজন মেটাতে কাজ করবে।’

 

এদিকে উখিয়া-টেকনাফ ও ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ‘সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থা’ (স্কাস) -এর চেয়ারপার্সন জেসমিন প্রেমার কাছে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “ভাসানচরে রোহিঙ্গা স্থানান্তরের বিষয়ে সরকারের সহযোগী সংস্থা হিসাবে স্কাস শুরু থেকে কাজ করে আসছে।

 

ইতিমধ্যে স্কাস ভাসানচরে জরুরি ত্রাণ সহায়তা সামগ্রী বিতরণসহ কয়েকটি প্রকল্প সফলভাবে শেষ করেছে। বর্তমানে ভাসানচরে স্কাসের শিক্ষা ও জীবিকায়ন নিয়ে দু’টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। যা স্কাস নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করে আসছে। ভাসানচরে সরকার নতুন করে জাতিসংঘকে যুক্ত করাতে ঔখানে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীদের নিয়ে কাজ করা এখন অনেক সহজ হবে।কারণ জাতিসংঘ এখন সহযোগীতা করবে।যা এতদিন স্থানীয় এনজিও গুলো সরকারের পাশা পাশি নিজেদের তহবিল থেকে করে আসছিল। সরকার এবং জাতিসংঘের বর্তমান উদ্যোগকে আমি স্কাসের পক্ষ থেকে স্বাগত জানাচ্ছি”।তিনি বিষয়টিকে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়চেতা নেতৃত্ব ও কূটনীতিক নীতির সাফল্য বলেও দাবী করেন।তিনি জাতিসংঘের সাথে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরে জড়িত সকল পক্ষকে ধন্যবাদও জানান।

 

এসময় পররাষ্ট্র, জননিরাপত্তা বিভাগ, এনএসআই ও জাতিসংঘের বাংলাদেশের আবাসিক সমন্বয়কারী (অন্তবর্তীকালীন) তোমু পটিয়ানেন, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির কান্ট্রি ডিরেক্টর রিচার্ড রিগ্যান এবং সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মানুষ বড় একা – নাসের ভুট্টো

মানুষ বড় একা

 

প্রতিদিন খুন হয় ভালোবাসার আন্দোলিত বুনন

অবহেলায় গড়িয়ে পড়ে অন্তর্গত শাশ্বত প্রসর্পণ

ছিনতাই হয় দুরুদুরু ইন্দ্রিয়ের… থরেথরে তরঙ্গ

এভাবে হৃদয় ও পৃথিবীর দূরত্ব মাপে মুগ্ধ- অঙ্গ।

 

তারপর নির্বাচিত হয় অলিখিত যতো প্রতিশ্রুতি

শুধ অনুভবে অনুবাদ করে স্বরচিত অজর স্মৃতি

দীর্ঘশ্বাসে খেলা করে কেবল প্রত্যাখানের ভুমিকা

অবশেষে বুঝে হারিয়ে সময়, মানুষ যে বড় একা।

কবি ও প্রাবন্ধিক নাসের ভুট্টো

 প্রকাশিত পঞ্চম গ্রন্থ- ‘বিনয়াবনত’।

নোয়াখালীতে বিএনপির কমিটির বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল

নিউজ২৪লাইন: নোয়াখালী জেলা বিএনপির বিরুদ্ধে টাকা খেয়ে পকেট কমিটি দেওয়ার অভিযোগে সদ্য ঘোষিত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করে বাতিলের দাবিতে ঝাড়ু মিছিল করেছে উপজেলা বিএনপির তৃণমূলের নেতাকর্মিরা।

একই সময়ে উপজেলা বিএনপির নবনির্বাচিত আহ্বায়ক নুরুল আলম সিকদার ও যুগ্ম-আহ্বায়ক আহছান উল্যাহকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। বিক্ষোভ মিছিলে নেতাকর্মিরা বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মো.শাহাজানের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ ভাষায় স্লোগান দিয়ে বলে কালো টাকার কমিটি মানিনা মানবনা।

শনিবার (৯ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার বসুরহাট পৌরসভা এলাকার বসুরহাট বাজারে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের কয়েক শ নেতাকমি এ কর্মসূচি পালন করে । এর আগে গতকাল (শুক্রবার ৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় কমিটি ঘোষণার সাথে সাথে বিএনপির প্রবীণ নেতা কাজী একরাম নতুন কমিটির সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি নেতা কাজী একরাম জানান, এ কমিটিতে পদায়নের ক্ষেত্রে সিনিয়র জুনিয়র মানা হয়নি। এতে করে এ কমিটি থেকে পদত্যাগের সংখ্যাও আরো বাড়তে পারে। নতুন ঘোষিত উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আলম সিকদারের বিরুদ্ধে সরকার দলের সাথে আঁতাত করে রাজনীতি করার অভিযোগ রয়েছে। তাই তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। এমনকি সে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়কেরর যোগ্য নই। তিনি আরো বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য প্রয়াত ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ঘোষিত উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বসুরহাট পৌরসভার সাবেক মেয়র ত্যাগী নেতা কামাল উদ্দিন চৌধুরীকে এ কমিটিতে যথাযত স্থানে রাখা হয়নি। যা রাজনীতি শিষ্টাচার বহিভূত।

ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিলে অংশ গ্রহণকারী একাধিক বিএনপি নেতাকর্মি অভিযোগ করেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জামায়েতের এক নেতার থেকে জেলা বিএনপির নেতারা টাকা খেয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির দুই নম্বর সদস্য করেছে। তার এক অনুসারীকে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক করেছে। এছাড়া ৪৮টি পদের ৪০টি পদ দেওয়া হয়েছে ওই জামায়াত নেতার অনুসারীদের। যারা প্রকৃত বিএনপি করে তাদেরকে পদ বঞ্চিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আলম সিকদার বলেন, কমিটিতো আমি করিনি। কেই মুখে মুখে পদত্যাগের কথা বললে এটার কোন মূল্য নেই। লিখিত পেলে এ বিষয়ে আমরা পরে কথা বলব।

নোয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসি টাকা খেয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি দেওয়ার অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বলেন দলের সকলের সাথে আলাপ আলোচনা করে এ কমিটি দেওয়া হয়েছে।

সুএ; সময়ের কন্ঠসর

সৌদির বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা, তিন বাংলাদেশিসহ আহত ১০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সৌদি আরবের জাজান শহরের কিং আব্দুল্লাহ বিমানবন্দরে ড্রোন হামলায় তিন বাংলাদেশিসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় হামলার এ ঘটনা ঘটে।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত বার্তাসংস্থা সৌদি প্রেস এজেন্সি (এসপিএ) এর বরাত দিয়ে আজ শনিবার আল-জাজিরা, এনডিটিভি, রয়টার্সসহ একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আহত অন্য সাতজনের মধ্যে ছয়জনই সৌদি আরবের নাগরিক। আরেকজন সুইডেনের নাগরিক। আহতদের মধ্যে পাঁচজনের তথ্য পাওয়া গেছে। তারা সামান্য আহত হয়েছেন। অন্য পাঁচজনের অবস্থা তাৎক্ষণিক জানা যায়নি।

সৌদি নেতৃাত্বাধীন জোটের এক মুখপাত্র জানান, ড্রোন হামলায় বিমানবন্দরে জানালার কাঁচসহ বেশ কিছু জায়গা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে কয়েকজন আহত হন। শনিবার ভোরের দিকে একই স্থানে হামলার চেষ্টাকালে আরেকটি বিস্ফোরক বোঝাই লাদেন ড্রোন আটক করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।
হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত জানালার কাঁচ

বার্তা সংস্থা রয়র্টাসের খবরে বলা হয়েছে, হামলায় ছয় সৌদি, তিন বাংলাদেশি ও এক সুদানের নাগরিক আহত হন।

এদিকে, কিং আব্দুল্লাহ বিমানবন্দরে এ হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ দায় স্বীকার করেনি। তবে সম্প্রতি জাজানসহ ইয়েমেন সীমান্তঘেঁষা সৌদি আরবের শহরগুলোতে হামলা চালাচ্ছে হুথি বিদ্রোহীরা। এ হামলার পেছনেও তাদের হাত রয়েছে বলে দাবি সৌদির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর।