পশ্চিম রত্না ও পূর্ব পাইন্যাশিয়া সেতু সড়কের ব্রীজ এবং রাস্তা নির্মাণের পরিদর্শন করেন জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যান

কাজল আইচ, উখিয়া, কক্সবাজার;

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলাধীন পশ্চিম রত্নাপালং ৯নং ওয়ার্ড হইতে পূর্ব পাইন্যাশিয়া বড়ুয়া পাড়া সেতু সড়ক হয়ে জালিয়াপালং ১নং ওয়ার্ডের সড়কের যাতায়াত রাস্তার মাঝেকালে ঝুঁকিতে ব্রীজটির উপর ব্যপক চলাচলের ব্রীজটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ভাবে দাবি দিয়ে আসছেন স্থানীয় কর্তৃপক্ষরা। 

 

৩১ জানুয়ারি ২০২২ ইং, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় পশ্চিম রত্নাপালং ৯নং ওয়ার্ড হইতে পূর্ব পান্যাশিয়া বড়ুয়া পাড়া সেতু সড়ক জালিয়াপালং ১নং ওয়ার্ডের সড়কের ব্রীজ নির্মাণের জায়গা পরিদর্শন করেন, এবং দুই ইউনিয়নের দুই পারের স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সাথে কথা বলেন উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী।

 

তিনি বলেন এই ব্রীজের কাজ গুনগত ও সুন্দর ভাবে কাজ করতে হলে, আপনাদের দুই পারের লোকজনদের সহযোগিতা অপরিহার্য, আর ব্রীজের অবকাঠামো উন্নয়নের কাজের জন্য রাস্তাটি সৌজা করতে আপনাদের (৩)ফুট করে জায়গা ছেড়ে দিয়ে হবে, তাছাড়া এই ব্রীজের আগে পরে রাস্তাটি সুন্দর ভাবে হলে দুই ইউনিয়ের চলাচলের ক্ষেত্রে, এবং সবচেয়ে আপনাদেরই সবার ভাল আর সৌন্দর্য লাঘব হবে বলে আমি মনে করি। তখন এলাকাবাসীরা খুশীতে  বলে, ঠিক আছে আপনি যে ভাবে বলবেন আমরা সেই ভাবে রাজি আছি।

প্রকৌশলী মহোদয় বলেন আমরা  অতি শীঘ্রই ব্রীজ নির্মাণের প্রস্তুতি হাতে নিয়ে আগামী (১৫) দিনের মধ্যে মাঠি সয়েল টেস্ট করবে বলে সিদ্ধান্ত নিব।

 

পশ্চিম রত্না ও পূর্ব পাইন্যাশিয়া সেতু সড়কের ব্রীজ ও রাস্তা নির্মাণের পরিদর্শনে গিয়েছিলেন, উখিয়া উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, রত্নাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা, উখিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি সাঈদ মোহাম্মদ আনোয়ার, জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী, রত্নাপালং ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সেলিম কায়ছার সহ ব্রীজের দুই পাড়ের অসংখ্য স্থানীয় লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

পালং জাজিরা ষষ্ঠ ধাপে উৎসব মুখর পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ

নিউজ২৪লাইন:

নুরুজ্জামান শেখ, শরীয়তপুর থেকে।
ষষ্ঠ ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের জাজিরা উপজেলার চারটি এবং পালং উপজেলার একটি ইউনিয়ন মোট পাঁচটি ইউনিয়নে সকাল থেকেই উৎসব মুখর পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ। ভোটারদের মাঝে বইছে আনন্দের উৎসব। জাজিরা উপজেলার জাজিরা, সেনেরচর, পূর্ব নাওডুবা এবং বড় গোপালপুর ইউনিয়ন ও পালং উপজেলার চিকন্দী ইউনিয়নে একযোগে দলীয় প্রতীক বিহীন ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএম পদ্ধতিতে চলছে ভোটগ্রহণ। ইয়াং জেনারেশন নতুন ভোটাররা ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট দিতে পেরে অত্যন্ত। সুস্থ সুন্দর পরিবেশে ভোট দিতে পেরে বৃদ্ধ বয়স্করা অত্যন্ত খুশি। চিকন্দী ইউনিয়নের শ্রী পাশা গ্রামের ৭ নং ওয়ার্ডে ৭ নং কেন্দ্র ফুটবল মার্কার সমর্থকদের সঙ্গে সাধারণ ভোটার ও সাংবাদিকদের সাথে বাকবিতণ্ডা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এছাড়া সকল ইউনিয়নে সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ। ভোটগ্রহণের শুরু থেকেই এই নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশ গড়ার লক্ষে সকাল থেকেই ম্যাজিস্ট্রেটসহ সকল আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা মাঠে দেখা গেছে। জেলা নির্বাচন কমিশনার গণমাধ্যমকে জানান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে ভোট গ্রহণের লক্ষ্যে আমাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।