সালথায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করা সেই তরুণীর বিয়ে

সালথা(ফরিদপুর)প্রতিনিধি >>

ফরিদপুরের সালথায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করা সেই তরুণীর অবশেষে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে।ওই তরুণীর নাম চৈতি বিশ্বাস (২০)। তিনি উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের গুপিনাথপুর গ্রামের সুমন বিশ্বাসের মেয়ে। তারা ২ বোন ও ১ ভাই।

শুক্রবার(১৭ জুন) দিবাগত রাত সাড়ে এগারোটার দিকে তাদের বিয়ে হয়।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের জগন্নাথদি গ্রামের শুনীল মিত্রের ছেলে সুমন মিত্রের (২৭) সঙ্গে পাশ্ববর্তী গুপিনাথপুর গ্রামের চৈতি বিশ্বাসের প্রায় দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। সম্প্রতি সুমন মিত্রের বিয়ের জন্য বিভিন্ন স্থানে পাত্রী দেখা শুরু করে পরিবার। পাত্রী দেখার খবর পেয়ে শুক্রবার সকাল থেকে প্রেমিক সুমনের বাড়িতে ওই তরুণী বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন। অবস্থান কর্মসূচির পর স্থানীয় মাতুব্বররা রাতেই বিয়ের আয়োজন করেন।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ও গুপিনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা অমর কুমার বিশ্বাস বলেন,ওই মেয়েটি সকাল থেকে বিয়ের দাবীতে ছেলের বাড়িতে অবস্থান করেন। পরে মেয়ের সাথে কথা বলে জানাযায় তার সাথে ছেলেটার শারিরীক সম্পর্ক হয়েছে। এছাড়া এসংক্রান্ত বেশ কিছু ডকুমেন্টস স্থানীয় মাতুব্বরদের দিয়েছেন মেয়েটি। পরে স্থানীয় মাতুব্বররা বসে সিদ্ধান্ত নিয়ে রাতেই বিয়ের আয়োজন করা হয়।

সুমন মিত্রের বাড়িতে অবস্থানরত ওই তরুণী চৈতি বিশ্বাস নিজেই এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সুমনের সঙ্গে আমার প্রায় দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছে। প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে বিয়ের আশ্বাসে তার সঙ্গে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কও হয়েছে। আমার কাছে ছবিসহ বিভিন্ন ডকুমেন্টস ছিলো। স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা সবকিছু যাচাই-বাছাই করে দুই পরিবারের সম্মতিতে পরে রাতেই বিয়ে আয়োজন করা হয়।

এ বিষয়ে যদুনন্দী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল রব বলেন, মেয়েটির অনশন শুরুর বিষয়টি জানতে পেরে দুই পরিবার ও এলাকাবাসীর সম্মতিতে রাতেই সামাজিকভাবে বিয়ের আয়োজন করা হয় এবং সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়।

শরীয়তপু‌রে জন্মদি‌ন অনুষ্ঠা‌নে নি‌য়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ; ভি‌ডিও ভাইরাল, অ‌ভিযুক্তরা পলাতক

নিউজ২৪লাইন:

মঞ্জুরুল ইসলাম রনি শরীয়তপুর :
শরীয়তপু‌রের ভেদরগঞ্জ উপ‌জেলার ম‌হিষার ইউ‌নিয়‌নের এক স্কুলছাত্রী‌‌ জন্ম‌দি‌নের অনুষ্ঠা‌নে গি‌য়ে ধ‌র্ষণের শিকার হ‌য়ে‌ছে ব‌লে অ‌ভি‌যোগ উ‌ঠে‌ছে। ওই ছাত্রী‌কে জোরপূর্বক ধর্ষণের প‌রে সেই ভি‌ডিও আবার সামা‌জিক যোগা‌যোগ মাধ‌্যমে ভাইরালের ঘটনা ঘ‌টে‌ছে। এ‌তে লোকলজ্জায় স্কু‌লে যাওয়া বন্ধ হ‌য়ে গে‌ছে ওই কি‌শোরীর। উক্ত ঘটনায় ভেদরগঞ্জ থানায় মামলা হ‌লেও আসামীপক্ষের চা‌পে ন‌্যায়‌বিচার পাওয়া নি‌য়ে শঙ্কায় র‌য়ে‌ছে ভুক্তভুগী প‌রিবার।

মামলার আসামীরা হ‌লেন, ভেদরগঞ্জ উপ‌জেলার ম‌হিষার ইউ‌নিয়‌নের সাজনপুর দাসপাড়া গ্রা‌মের অ‌শিম দা‌সের ছে‌লে অর্পণ দাস (১৯), একই এলাকার কোমল দা‌সের ছে‌লে দুর্জয় দাস(১৯), দ‌ক্ষিণ ম‌হিষার গ্রা‌মের মোক্তার সরদা‌রের ছে‌লে মু‌ব‌দি সরদার(১৮)। তারা সক‌লেই সাজনপুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ‌্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং ১ ও ৩নং আসামীরা ২০২২ সা‌লের এসএসসি পরীক্ষার্থী।

পু‌লিশ ও ভুক্তভুগী প‌রিবার সূ‌ত্রে জানা যায়, গত ক‌য়েকমাস পূ‌র্বে জন্ম‌দি‌নের অনুষ্ঠান কথা ব‌লে সাজনপুর বাজার থে‌কে ওই স্কুলছাত্রীকে ১নং আসামী অর্পণ দা‌সের বা‌ড়ি‌তে নি‌য়ে যায় দূর্জয় দাস ও মু‌ব‌দি সরদার। বা‌ড়ি‌তে গি‌য়ে জন্ম‌দিন অনুষ্ঠা‌নের ফাঁ‌কে ওই বান্ধবী‌ স্কুলছাত্রী‌কে এক‌টি রু‌মে নি‌য়ে যায় অ‌ভিযুক্ত সহপা‌ঠি তিন বন্ধু। একপর্যা‌য়ে দুর্জয় ও মুব‌দির সহ‌যো‌গিতায় ওই মে‌য়েটি‌কে জোরপূর্বক ধর্ষণ ক‌রে অর্পণ দাস। তা‌দের ওইসব কর্মকান্ড আবার মু‌ঠো‌ফো‌নে ধারন ক‌রে সহ‌যোগীতাকারী দুই বন্ধু। ধর্ষণের পর থে‌কেই ওই স্কুলছাত্রীকে আবারও কুপস্তাব দি‌তে থা‌কে দুর্জয় ও মুব‌দি। ত‌বে ওই কি‌শোরী‌কে তা‌দের প্রস্তা‌বে কোন ভা‌বে রা‌জি কর‌তে না পে‌রে সেই‌দি‌নের ধারনকৃত ধর্ষণের ভি‌ডিও ক্লিপ‌টি ইন্টা‌নে‌টে ভাইরাল ক‌রে দেয় অ‌ভিযুক্তরা। ভি‌ডিও ভাইরা‌লের পর থে‌কে সামা‌জিক চা‌পে স্কু‌লে যাওয়া বন্ধ হ‌য়ে গে‌ছে ওই কি‌শোরীর।

এরপর গত ৫ জুন ভেদরগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ও প‌র্নোগ্রা‌ফি আই‌নে এক‌টি মামলা দা‌য়ের ক‌রে ওই কি‌শোরী। ত‌বে মামলা হ‌লেও এখ‌নো আসামী‌দের গ্রেফতার কর‌তে পা‌রে‌নি পু‌লিশ। আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় উল্ট মামলা প্রত‌্যাহা‌রের জন‌্য হুম‌কি দি‌চ্ছে ব‌লে অ‌ভি‌যোগ ওই কি‌শোরীর প‌রিবা‌রের।

শ‌নিবার (১৮জুন) ধর্ষণের শিকার ওই কি‌শোরীর বা‌ড়ি‌তে গে‌লে তি‌নি সাংবা‌দিক‌দের ব‌লেন, মামলার আসামীরা তার সা‌থে একই স্কু‌লে পড়া‌লেখা ক‌রে। সহপা‌ঠি হওয়ায় জন্ম‌দি‌নের অনুষ্ঠান যে‌তে রা‌জি হই। কিন্তু ওরা আমা‌কে নি‌য়ে গি‌য়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ ক‌রে ও সেই ভি‌ডিও ধারন ক‌রে‌ছে। পরবর্তী‌তে আমা‌কে ওই ভি‌ডিও দে‌খি‌য়ে ব‌্যাবহার করার চেষ্টা কর‌ছে। আমি রা‌জি না হওয়ায় ওরা ওই ধারনকৃত ক্লিপ‌টি ভাইরাল ক‌রে দি‌য়ে‌ছে। ওরা আমার জীবনটা‌কে নষ্ট ক‌রে দি‌ছে। ও‌দের আ‌মি বিচার চাই। আসামীরা অ‌নেক প্রভাবশালী হওয়ায় বি‌ভিন্ন চা‌পের ম‌ধ্যে আ‌ছি। সামনে আমার এসএস‌সি পরীক্ষা দি‌তে পার‌বো কি না জা‌নিনা।

মামলার তদন্তকারী অ‌ফিসার ভেদরগঞ্জ থানার উপ-প‌রিদর্শক (এসআই) রা‌জিব সূত্রধর ব‌লেন, ধর্ষণ ও ওই ঘটনা ভাইরা‌ল ঘটনায় থানায় মামলা হ‌য়ে‌ছে। তদন্ত চ‌লছে ও আসামীদের গ্রেফতা‌রের জন‌্য অ‌ভিযান অব‌্যাহত র‌য়ে‌ছে।

শরীয়তপুরে মটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ১ জনের মৃত্যু

নিউজ২৪লাইন:

নুরুজ্জামান শেখ শরীয়তপুর

শরীয়তপুর সদর উপজেলার পালং থানাধীন আংগারিয়া বড় ব্রিজের পশ্চিম পাশে প্রধান সড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মোঃ শাওন বেপারী (২৮) নামে যুবকের মৃত্যু হয়েছে। গত ১৫ জুন ২০২২ (বুধবার) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মোটরসাইকেল সড়ক দুর্ঘটনায় শাওন নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। নিহত শাওন মাদারীপুর পুরান বাজার পূর্ব কাস্তি ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সোনামিয়া বেপারীর বড় ছেলে। গত দুই মাস পূর্বে সৌদি আরব থেকে এসেছে। শাওন ছিল বিবাহিত।তার ৮ মাসের শাম্মী আক্তার নামে এক কন্যা শিশু রয়েছে এবং স্ত্রী জায়েদা বেগুম। পরিবার সূত্রে জানা গেছে শাওনের নানা বাড়ি পালং উপজেলা চিতলিয়া ইউনিয়নের মুন্সিবাড়ি। গত ১৫ জুন বিকেল চারটার দিকে নিজ বাড়ি থেকে নানা বাড়িতে আসার উদ্দেশ্যে সুজুকি জিক্সার (১৬০) সিসি মোটরসাইকেল নিয়ে বের হয়। শরীয়তপুর- মাদারীপুর সড়কে এক পথচারী যুবককে ধাক্কা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় শাওন এবং পথচারী যুবককে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার শাওনকে মৃত ঘোষণা করে। এবং পথচারীর যুবকের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ঢাকা পাঠিয়ে দেয়।

পালং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আক্তার হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন দুর্ঘটনাটি আমাদের সামনে হয়েছে। নিহত শাওন পথচারী যুবককে ধাক্কা দেয়। সম্পূর্ণ ভুল ওর ছিল। শাওন বেঁচে থাকলে উল্টো ওর নামে মামলা হতে।