বোয়ালমারীতে বৃষ্টির ভেতর পাঠদান বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের দিয়ে মানববন্ধন

বোয়ালমারী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি: ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে বিদ্যালয়ের পাঠদান বন্ধ রেখে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিয়ে জোর করে বৃষ্টির ভেতর বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে অংশগ্রহন করানো হয়।

আওয়ামীলীগ নেতা ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির নির্দেশে গোহাইলবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিয়ে জোড়া খুনের মামলায় উচ্চ আদালত থেকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে থাকা আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবিতে এই মানববন্ধন করানো হয়।
উপজেলার ঘোষপুর ইউনিয়নের গোহাইলবাড়ী বাজারে শনিবার (১৯ জুন) সকালে মামলার বাদি ও গোহাইলবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি, উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মোস্তফা জামান সিদ্দিকী এই বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনের নেতৃত্বদেন।
গত ৩ মে মঙ্গলবার ঈদুল ফিতরের দিনে উপজেলার ঘোষপুর ইউনিয়নের গোহাইলবাড়ী বাজারে উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মোস্তফা জামান সিদ্দিকী ও স্থানীয় মৃত বজলুর রহমান ওরফে বজলু খালাসির ছেলে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আরিফ হোসেনের সাথে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জোড়া খুনের ঘটনা ঘটে। হত্যাকান্ড ঘটনার পাঁচদিন পর গোলাম মোস্তফা জামান সিদ্দিকী বাদি হয়ে বোয়ালমারী থানায় ৮১ জনের নাম উল্লেখ পূর্বক আরও ৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে গোহাইলবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আইয়ুব আলী জানান, নিহতের দুই ছেলে আমার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। সে কারনে সহপাঠীরা মানবন্ধনে গিয়েছিলো তবে পাঠদান বন্ধ রেখে নয়।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি গোলাম মোস্তফা জামান সিদ্দিকী শিক্ষার্থীদের জোর করে মানববন্ধনে আনার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, নিহত দুই জনের মধ্যে এক জনের দুটি ছেলে আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। সেই কারনে মানববন্ধনে অন্য শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহন করে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, পাঠদান বন্ধ রেখে কোন প্রকার মিটিং, মিছিল, মানববন্ধন করা যাবে না। বিষয়টি আপনার কাছ থেকে আমি জানলাম। এব্যাপারে খোজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।
বোয়ালমারী থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব বলেন, এ মামলায় ৬১ জন আসামী উচ্চ আদালত থেকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নিয়েছে। আদালত তাদের নিম্ন আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। অন্যদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে অভিযোগপত্র দায়েরের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

ডামুড্যায় সেলাই মেশিন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্ধোধন করেন আমরা রমণীর সভাপতি মালিয়া হোসেন

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউজ২৪লাইন:

নারীদের কর্মসংস্থান, বেকারত্ব দুরীকরণ ও আর্থিক সচ্ছলতার লক্ষ্যে আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে গত ১৫ জুন (বুধবার) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায় শরীয়তপুর-৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব নাহিম রাজ্জাকের বাসভবনে আমরা রমণীর ‘সেলাই মেশিন প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান’ প্রকল্পের অধীনে ‘সুতোর খেলা’ নামে একটি সেলাই মেশিন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্ধোধন করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন আমরা রমণীর কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি মালিয়া হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শরীয়তপুর ৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব নাহিম রাজ্জাক ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডামুড্যা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা খানম লাভলী, গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা বেগম এবং ডামুড্যা ও গোসাইরহাট উপজেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকতা ফাতিমা নাহিয়ান। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আমরা রমণীর প্রধান সমন্বয়কারী জনাব মামুন হোসেন ও স্থানীয় সমন্বয়কারী তাহমিনা কাদের সুধা।

উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধনের পাশাপাশি আমরা রমণী ‘Door to Door Mobile Entrepreneurs’ প্রকল্পের আওতায় নতুনভাবে নির্বাচিত আরও ৫ জন নারী উদ্যোক্তাদের হাতে ‘উদ্যোক্তা ব্যাগ’ তুলে দিয়েছে। এছাড়াও এই প্রকল্পের আওতাধীন ২০ জন নারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে এপ্রিল মাসের সর্বোচ্চ বিক্রির উপরে প্রথম ৩ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।