ডামুড্যায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অবহিতকরণ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত

নিউজ২৪লাইন:

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে সেমিনারের আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন।উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হাছিবা খানের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন ডামুড্যা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আলমগীর হোসেন মাঝি ।এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ গোলন্দাজ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা খানম লাভলী,ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ শেখ মোহাম্মদ মোস্তফা খোকন, ডামুড্যা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ শরীফুল আলম ,উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আবু নাইম নাবিল, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রেজাউল করিম, আইসিটি কর্মকর্তা লিটন মুন্সি, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফাতেমা নাহিয়ান, উপজেলা ইউআরসি কর্মকর্তা ফয়জুল কবির, মাধ্যমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার এসএম গিয়াস উদ্দিন, দারিদ্র্য বিমোচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোতালেব হোসেন, পূর্ব ডামুড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ পারভেজ লিটন হাওলাদার, কনেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান বাচ্ছু মাদবর, ধানকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মাওলা রতন, সিড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ হাদী জিল্লু রহমান, দারুলআমান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিন্টু সিকদার, ডামুড্যা প্রেসক্লাব সভাপতি শফিকুল ইসলাম সোহেলসহ সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কর্মকর্তা প্রমুখ।

দেশি-বিদেশি ফুল গাছের দেখা মেলে ঢাকার রাস্তায় অহরহ

নিউজ২৪লাইন:
মুহিদুল ইসলাম পান্না ; স্টাফ রিপোর্টার

চেরী,কাঠগোলাপ,নাগচম্পা,মাধবিলতা, সন্ধামালতী,দুপরুমনি,অ্যাডোনিয়াম, বেলী,বাগানবিলাস ইত্যাদি শত শত প্রজাতির ফুল গাছের বিস্তার ছড়িয়ে যাচ্ছে ঢাকা শহরে। এমনকি বনসাই এর ও দেখা মেলে ঢাকার রাস্তায়। লক্ষ লক্ষ টাকা দামের এক একটি বনসাই এর দেখা মূলত বৃক্ষমেলায় দেখা স্বাভাবিক হলেও এখন দেখা যাচ্ছে ঢাকার রাস্তার পাশে। এছাড়া দেশীয় ফুলগাছের পাশাপাশি বনফুল ল্যান্টেনা ও মুগ্ধ করছে মানুষকে। কাটিং,গ্রাফটিং এর মাধ্যে সংকরায়ন করা হচ্ছে ফুল গাছগুলোকে। তাছাড়া ডাবল পোর্টার ফুল ও তৈরি হচ্ছে নার্সারীতে। বর্তমানে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ জায়গুলোতেও নার্সারী গড়ে উঠছে অগনিত। এ থেকে এ কথা স্পষ্ট যে ফুলের মুগ্ধতা দিন দিন ছড়িয়ে পড়ছে মানুষের মনে। এছাড়া এখাতে ব্যবসা করে উদ্যেগতা রা ও হতে পারে স্বাবলম্বী। ফুলের সৌন্দর্য মুগ্ধ করুক প্রতিটি মানুষকে।

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় প্রাইভেটকার খাদে পড়ে এক আইনজীবী ও তার মেয়ে নিহত হয়েছেন

নিউজ২৪লাইন:

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় প্রাইভেটকার খাদে পড়ে এক আইনজীবী ও তার মেয়ে নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন তিনজন। গতকাল শনিবার রাত আড়াইটার দিকে নড়িয়া উপজেলার জামতলা এলাকায় শরীয়তপুর-ঢাকা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাসানচর গ্রামের অ্যাডভোকেট রাশেদুল হক রাশেদ (৩৮) ও তার ছোট মেয়ে মাইসা আক্তার (৩)।
পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার নিজেদের প্রাইভেটকারে পরিবার নিয়ে কক্সবাজার ঘুরতে যান রাশেদ। শনিবার রাতে বাড়ি ফেরার সময় জামতলা এলাকায় প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের খাদে পড়ে যায়। স্থানীয়রা আহতদের জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক রাশেদ ও মাইদাকে মৃত ঘোষণা করেন।
রাশেদের আহত স্ত্রী সোহানা আক্তার মিলি (২৬), বড় মেয়ে মেবিন (৬) ও প্রাইভেটকারচালক কামরুল হাসানকে (২৭) প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
চালক কামরুল বলেন, ‘কক্সবাজার থেকে শনিবার রাত ১১টার দিকে ঢাকার উত্তরা আসি। উত্তরা পর্যন্ত আমি ড্রাইভ করি। পরে সেখান থেকে রাশেদ স্যার ড্রাইভিং করেন। স্যারকে অনেক অনুরোধ করেছি, আপনার ড্রাইভিং করার দরকার নেই। খারাপ ও সরু রাস্তায় তিনি ড্রাইভ করায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।’
নড়িয়া থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মেয়ের মৃত্যু হয়েছে, যা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়াই হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় কোনো মামলা হবে না।’

ডামুড্যার সিড্যা দাখিল মাদ্রাসার ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করলেন নাহিম রাজ্জাক এমপি

নিউজ২৪লাইন:

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ইউনিয়নের সিড্যা দাখিল মাদ্রাসা উদ্বোধন করা হয়েছে।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) দুপুরে ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী সিড্যা হাফিজিয়া মাদ্রাসা মাঠে সিড্যা দাখিল মাদ্রাসা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নাহিম রাজ্জাক এমপি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন খাঁটি মুসলমান ছিলেন বলেই তিনি সল্প সময়ে ইসলামের জন্য অনেক গুলো কাজ করে গেছেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন তারই অনন্য সৃষ্টি। এ পরে ইসলামের জন্য কাজ করছেন তারই সুযোগ্য কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা। একজন মুমিনের কাছে যেমন সকল ধর্মের মানুষ নিরাপদ। তেমনি আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলে সকল ধর্মের মানুষ নিরাপদে ও শান্তিতে থাকে। আওয়ামীলীগের আমলেই রোজা ও পূজা শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হয়। হিন্দু-মুসলিমের সম্প্রীতি বজায় থাকে।
তিনি বিরোধী দলের আন্দোলন সম্পর্কে বলেন, বিএনপি দেশের উন্নয়ন, অগ্রযাত্রা ও শান্তি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্রে মাঠে নেমেছে। তারা ছলে বলে কৌশলে চোরাই পথে ক্ষমতায় যাওয়ার রঙ্গিন স্বপ্ন দেখছে। আওয়ামীলীগের একজন কর্মী বেঁচে থাকতে তাদের এ স্বপ্ন পুরণ হবেনা। বাংলাদেশের মানুষ আর কোন দিন দূর্নীতিবাজ সন্ত্রাসীদের ক্ষতায় বসাবে না।
সিড্যা হাফিজিয়া মাদ্রাসার (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি আলহাজ্ব মাওলানা সালেহ আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইমদাদুল হক ইনু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বাবলু সিকদার, যুগ্ন সম্পাদক আলমগীর হোসেন মোল্লা, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ গোলান্দাজ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা খানম লাভলী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল হাদী জিল্লু।এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নবনির্বাচিত জেলা পরিষদ সদস্য সৈয়দ ইকবাল হোসেন ওচমান,
ইসলামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্যা, কনেশ্বর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান বাচ্চু, ধানকাঠির চেয়ারম্যান গোলাম মাওলা রতন,সমাজ সেবক আবদুল্লাহ আকন, উপজেলা যুবলীগের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি মোঃ ফেরদৌস ওয়াহিদ সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

খুচরা বাজারে চিনির দাম টাল মাটাল” ইচ্ছেমতো নিচ্ছে দাম

নিউজ২৪লাইন:
মহিদুল ইসলাম পান্না স্টাফ রিপোর্টার

রাজধানীর খুচরা দোকানগুলোতে কখনো চিনি পাওয়া যাচ্ছে, কখনো পাওয়া যাচ্ছে না। বিক্রেতারা বলছেন, পাইকারি দোকান থেকে মাঝেমধ্যে তাঁরা চিনি পান। পরিমাণে অল্প। সেই চিনি দ্রুতই বিক্রি হয়ে যায়। ফলে বেশির ভাগ সময় দোকানে চিনি থাকে না।শুধু সংকটই নয়, বাজারে চিনি বিক্রি হচ্ছে ইচ্ছামতো দামে। কোনো দোকানে খোলা চিনি ১০৫ টাকা, কোনো দোকানে ১১০ টাকা, আবার কোনো দোকানে ১২০ টাকা দরেও বিক্রি করা হচ্ছে। যদিও খোলাবাজারে সরকার নির্ধারিত দর ৯০ টাকা কেজি। প্যাকেটজাত চিনির ক্ষেত্রে দরটি ৯৫ টাকা। যদিও দোকানে এই চিনি পাওয়া যাচ্ছে না। রাজধানীর কাঁটাবন, নিউমার্কেট, ধানমন্ডি, কলাবাগান, পান্থপথ, ইন্দিরা রোড ও রাজাবাজার এলাকার কাঁচাবাজার ও পাড়া-মহল্লার মুদিদোকান ঘুরে গতকাল শনিবার এ চিত্র দেখা গেছে। খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, চিনি কিনতে এসে ক্রেতারা একবার পাচ্ছেন, তো আরেকবার পাচ্ছেন না।বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের (বিটিটিসি) হিসাবে, দেশে বছরে চিনির চাহিদা ১৮ থেকে ২০ লাখ মেট্রিক টন। এই চিনির প্রায় পুরোটা বিদেশ থেকে আমদানি করে পরিশোধন করা হয়। বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত চিনি ও ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে আগে থেকেই চিনির দাম বাড়ছিল। তবে দুই সপ্তাহ আগে থেকে সরবরাহে ঘাটতি শুরু হয়।সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে, বাজারে এখন প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১১৫ টাকায়। এক সপ্তাহে দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা। সব মিলিয়ে এক মাসে চিনির দাম বেড়েছে প্রায় ২৯ শতাংশ। চিনি পরিশোধনকারী কোম্পানিগুলো বলছে, সরবরাহে এই ঘাটতি তৈরি হয়েছে গ্যাসের অভাব ও লোডশেডিংয়ের কারণে। কারখানায় উৎপাদন কার্যক্রম ঠিকভাবে চালানো যাচ্ছে না।

মোহাম্মদপুরে নির্মানাধীন ভবব থেকে ইট পরে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু

নিউজ২৪লাইন:
মহিদুল ইসলাম পান্না স্টাফ রিপোর্টার:
রাজধানীর মোহাম্মদপুরে গতকাল শনিবার বিকেলে একটি নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম মোহা. আবদুল হাফিজ কারেমী (১৪)।আবদুল হাফিজ মোহাম্মদপুরের একটি কারিগরি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। তার মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। মোহাম্মদপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামরুজ্জামান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্কুলছাত্রের মৃত্যুর বিষয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অনীক বলেন, সে ঢাকায় একটি হোস্টেলে থেকে পড়ালেখা করত। মোহাম্মদপুরের নবীনগর হাউজিং এলাকায় একটি সাততলা নির্মাণাধীন ভবন থেকে তার মাথায় ইট পড়ে। এতে গুরুতর জখম হয় সে। উদ্ধার করে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।পরিদর্শক কামরুজ্জামান বলেন, ওই স্কুলছাত্রের মৃত্যুর বিষয়ে তার পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ করা হয়নি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চার দিনেও বিদ্যুৎ লাইন মেরামতে অক্ষম শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি

নিউজ২৪লাইন:

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গত চারদিন যাবত বিদ্যুৎ নেই। উপজেলার কিছু কিছু স্থানে বিদ্যুৎ থাকলেও অধিকাংশ স্থানের বাসিন্দারা গত চারদিন যাবত বিদ্যুৎ এর মুখ দেখেনি।
উল্লেখ্য ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাবে ডামুড্যা উপজেলায় তেমন কোন খয়ক্ষতি না হলেও বেশ কিছু স্থানে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এতে উপজেলার অধিকাংশ স্থান বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। গত বুধবার উপজেলার কিছু কিছু স্থানে বিদ্যুৎসংযোগ দেওয়া হলেও অধিকাংশ স্থানে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ থাকে।
ভুক্তভোগীদের অভিযোগ লাইন ম্যানদের ফোন দিলে তারা ফোন ধরেন না। এছাড়াও তাদের যারা টাকা দিতে পারে তাদের কাজ আগে করে দেয়।যদিও এমন অভিযোগের কোন সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি।
তাদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে লাইন ম্যানদের ফোন দিয়েও পাওয়া যায়নি।
ভুক্তভোগীরা আরো বলেন,গত সোমবার থেকে বিদ্যুৎ নেই আর আজকে বৃহস্পতিবার রাত। আমাদের ফ্রীজে যা ছিল তা প্রায় পচে গেছে। এমতাবস্থায় বিদ্যুৎ না আসলে আমাদের সব পচে যাবে।
এ বিষয় শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডামুড্যা জোনাল অফিসের এজিএম মুঠোফোনে বলেন, আমি কি করবো? লোক পাঠানো হয়েছে। তারা কাজ করতেছে। অনেক স্থানে তার ছেড়া। তাই সময় লাগবে। আপনারা অপেক্ষা করুন।

1 2 3 7