জলাবদ্ধতা নিরসনে শতাধিক কৃষকের মুখে হাসি ফোটালেন জেলা প্রশাসন

নিউজ২৪লাইনঃ
নুরুজ্জামান শেখ, শরীয়তপুর থেকে।

এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি রাখা যাবে না মর্মে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে শরীয়তপুর জেলার সুযোগ্য এবং অত্যন্ত পরিশ্রমী জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান এবং সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বিগত দিনে কৃষি উদ্ভাবনী মেলা আয়োজন করেন। কৃষি ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে কৃষি উদ্ভাবনী মেলায় জেলা প্রশাসক কৃষকদের কৃষি আধুনিক যন্ত্রপাতি ধানের বীজ, নার্সারি চারা, সার এবং ইরি সেচ পাম মেশিন ইত্যাদি বিতরণ করেন। জেলা প্রশাসক বলেন, কৃষি ফসল উৎপাদন করা যায় এমন জমি খেদ, বাড়ির আঙিনা ভিটা এক ইঞ্চি জমিও কৃষি অনাবাদি রাখা যাবে না। শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলাশার ইউনিয়নের উপর গাও বড়াইল গ্রামের প্রায় ৩৫ একর কৃষি জমি দীর্ঘ ২৫ বছর যাবত জলাবদ্ধতার কারণে অনাবাদী হিসেবে পড়েছিল। বিষয়টি ভুক্তভোগী কৃষকরা গণ শুনানিতে সুযোগ্য জেলা প্রশাসকের নজরে আনেন।
শরীয়তপুর জেলা প্রশাসকের ত্বরিত দিকনির্দেশনা ও তাগিদ অনুযায়ী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র কয়েকবার সরেজমিন পরিদর্শন করে সেচ পাম্প লাগিয়ে আবদ্ধ পানি অপসারণ করার ব্যবস্থা করেন। এতে প্রায় ৩৫ একর জমির শতাধিক কৃষক প্রায় বিশ বছর পর নতুন করে চাষের আওতায় আনতে পেরেছে। এছাড়া খাল খনন এর প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। শীগ্রই সে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এর ফলে অচিরেই এই বিস্তীর্ণ এলাকায় বছরে তিন ফসল ফলনের অমিত সম্ভাবনা সৃষ্টি হতে চলেছে। জেলা প্রশাসনের এই জনবান্ধব উদ্যোগে ভীষণ খুশি স্থানীয় কৃষকগণ। “এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি থাকবে না“- মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই যুগোপযোগী নির্দেশ অনুসারে আরও এক তাৎপর্যপূর্ণ পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করল শরীয়তপুর জেলা প্রশাসন।
শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র গণমাধ্যমকে বলেন, আপনারা জানেন যে, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে, আমাদের এক ইঞ্চি মাটি ও যেন অনাবাদি না থাকে তার এই অংশ হিসেবে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরপরই গত চার মাস যাবৎ কাজ করে যাচ্ছে জেলা প্রশাসন শরীয়তপুর। এবং তারই অংশ হিসেবে আমরা উপজেলা পর্যায় কাজ করে যাচ্ছি। শরীয়তপুর সদর উপজেলা এরকম বেশ কয়েকটি প্রকল্পে কাজ করেছি প্রায় এক হাজার তিনশত হেক্টর জমি জলাবদ্ধতা থেকে নিরসন করেছি। তারই একটি অংশ হিসেবে আজকে সকাল দশটায় তুলাশার ইউনিয়নের ওপর গাঁও বড়াইল গ্রামে যে অংশ রয়েছে সে অংশে প্রায় ৩৫ একর জমি জলাবদ্ধতা ছিল। আমরা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জলাবদ্ধতা অংশটি নিরসন করতে সক্ষম হয়েছি। ২০ থেকে ২৫ বছর যাবত জলাবদ্ধতার কারণে জমিগুলো অনাবাদি ছিল। এই জলাবদ্ধতা নিরসনের কারণে প্রায় শতাধিক কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

প্রবাসী ভাইকে আনতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন কাউছার

নিউজ২৪লাইনঃ

ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় সিঙ্গাপুর প্রবাসী ভাইকে নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে গাড়ি উল্টে কাউছার মাঝি (২৬) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়। এ দুর্ঘটনায় ৫ জন আহত হয়েছেন। সোমবার (২ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ৩টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

কাউছার মাঝি (২৬) উপজেলার চর ভয়রা এলাকার মৃত বারেক মাঝির ছেলে। তারও আগামী ১২ তারিখ সিঙ্গাপুর যাওয়ার কথা ছিল।
স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা যায়, গতকাল কাউছার ও তার পরিবারের সদস্যরা ঢাকা যায় তার ভাই সিঙ্গাপুর প্রবাসী আল আমিন মাঝিকে বাড়ি আনার জন্য। ভাইকে নিয়ে তারা প্রাইভেট কারে করে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে প্রাইভেট কারটি উপজেলার মাঝেরটেক নামক এলাকায় আসলে কুয়াশার ঘনত্ব বেশি থাকায় গাড়িটি উল্টে পাশের পুকুরে পড়ে যায়। এতে গাড়িতে থাকা কাউছারসহ ৫ জন ভিতরে আটকে যান। স্থানীয়রা এসে তাদেরকে গাড়ি থেকে বের করে পুলিশের ভ্যানে করে হাসপাতালে পাঠায়। তবে পথিমধ্যে কাউছার মারা যান। বাকিদের মধ্যে একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয় আকাশ আহমেদ বলেন, হঠাৎ করে চিৎকার শুনে আমরা ঘর থেকে বের হই। পরে রাস্তার পাশে পুকুরের মধ্যে একটি প্রাইভেট কার পড়ে থাকতে দেখি। আমরা দ্রুত নেমে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই।
ডামুড্যা থানা পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) সফি উল্লাহ বলেন, আমরা রাতে টহলে ছিলাম। হঠাৎ করে চিৎকার শুনতে পেয়ে আমরা ছুটে যাই। স্থানীয়দের সহায়তায় আমরা সকলকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। পথে কাউছার নামের একজনের মৃত্যু হয়।

ডামুড্যা ফায়ার সার্ভিস এর ফায়ার ফাইটার হাসেম সিকদার মুক্ত জার্নালকে মুঠোফোনে বলেন, আমরা রাতে খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যাই। সেখানে আমরা যাওয়ার আগেই স্থানীয়রা সবাইকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছিল।