মালয়েশিয়া প্রবাসী জহিরুল ইসলাম এর সার্বিক সহযোগিতায় বধুবেশে স্বামীর ঘরে শিলা

নিউজ২৪লাইনঃ
শরীয়তপুর প্রতিনিধি
স্বামীর অধিকারের দাবী নিয়ে এক নববধূর অনশন ,এই শিরোনামে গত ১ জানুয়ারী এশিয়ান টেলিভিশনে সংবাদ প্রচার হওয়ায় পরে মালয়েশিয়া প্রবাসী জহিরুল ইসলাম এর সার্বিক সহযোগিতায় স্বামীর অধিকার ফিরে পেলন গৃহবধূ
শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার কনেশ্বর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের সৈয়দবস্তা গ্রামের মোস্তফা বেপারীর বাড়িতে স্বামীর অধিকারের দাবীতে গত ৩১ডিসেম্বর অনশন করে একই ওয়ার্ডের মজিদ বেপারীর ছোট মেয়ে শিলা আক্তার।
এলাকাবাসী ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শিলা আক্তার কে তার বাবার বাড়িতে ফিরিয়ে দিয়ে আসেন মিমাংসা করে দেওয়ার কথা বলে।
১ জানুয়ারী ২০২৩ এশিয়ান টেলিভিশনে সংবাদ প্রচার হওয়ার পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসী বিষয়টি মীমাংসা করে দেন।
স্থানীয় মালয়েশিয়া প্রবাসী জহিরুল ইসলাম অতিথিদের আপ্যায়নে দায়িত্বভার নেন তার আর্থিক ও সার্বিক সহযোগিতায়, ৫ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার বরযাত্রী এসে আনুষ্ঠানিকতা শেষে শিলা আক্তারকে তার স্বামীর বাড়ি নিয়ে যায়।

এব্যাপারে নববধূ শিলা আক্তার বলেন,আমি মালয়েশিয়া প্রবাসী জহিরুল ইসলাম এর সার্বিক সহযোগিতায় এবং স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বার এলাকাবাসী সকলের সহযোগিতায় বধুবেশে স্বামীর ঘরে ফিরতে পেরেছি,
একই সাথে ধন্যবাদ জানাই এশিয়ান টেলিভিশন কতৃপক্ষকে আমার সমস্যাটা সুন্দরভাবে তুলে ধরার জন্য যার কারণে স্থানীয় চেয়ারম্যান এবং প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্ব দিয়েছে আমি আমার স্বামীর অধিকার ফিরে পেয়েছি।

উল্লেখ্যঃ
স্হানীয় সুত্র থেকে জানা যায় গত ৪ ডিসেম্বর কনেশ্বর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মোস্তফা বেপারীর ছেলে নাজমুল ও একই এলাকার মজিদ বেপারীর মেয়ে শিলা আক্তার গোপনে ভালবেসে বিয়ে করেন।কিন্তু নাজমুলের পরিবার এই বিয়ে কিছুতেই মেনে নিতে রাজি হয়নি। নাজমুলের পরিবারের চাপে নাজমুল শিলাকে এড়িয়ে চলতে শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় একবার ডামুড্যা থানায় শিলা এবং নাজমুলের বিয়ে নিয়ে শালিস দরবার করে সিদ্ধান্ত হয় আগামী ১৫ দিন পর নাজমুল শিলাকে তার বাবা-মাকে বুজিয়ে তাদের বাড়িতে নিয়ে যাবে আর প্রত্যেক দিন নাজমুল শিলাদের বাড়িতে যাবে। কিন্তু নাজমুল তার পরিবারের চাপে শিলার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।তাই ৩১ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় শিলা তার স্বামীর অধিকারের দাবীতে স্বামী নাজমুলদের বাড়িতে অনশন করেন।

ডামুড্যায় ‘আমরা রমণী’র শীতবস্ত্র বিতরণ

নিউজ২৪লাইনঃ
ইয়ামিন কাদের নিলয়
বিশেষ প্রতিনিধি

আজ ৬ জানুয়ারি (শুক্রবার) বিকাল ৪টায় শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায় শরীয়তপুর-৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব নাহিম রাজ্জাকের বাসভবনে আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে আমরা রমণীর সদস্যদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

শীতবস্ত্র বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন আমরা রমণীর প্রধান প্রকল্প পরিচালক জনাব মামুন হোসেন, স্থানীয় সমন্বয়কারী তাহমিনা কাদের সুধা এবং মিডিয়া ও এক্সটার্নাল এফায়েরস শাখার স্থানীয় সমন্বকারী জনাব ইয়ামিন কাদের নিলয়।

শীতবস্ত্র বিতরণের আগে উক্ত অনুষ্ঠানে আমরা রমণীর প্রধান প্রকল্প পরিচালক জনাব মামুন হোসেন আমরা রমণীর সদস্যদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। উক্ত বক্তব্যে তিনি আমরা রমণীর সকল প্রকল্প প্রচারণা নিয়ে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন এবং সামনের কিছু দক্ষতা বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও সেমিনার নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোকপাত করেন।

উল্লেখ্য, ‘আমরা রমণী’ আব্দুর রাজ্জাক ফাউন্ডেশনের এমন একটি অঙ্গসংগঠন যার লক্ষ্য নারীদের অনুপ্রাণিত করা, সংগঠিত করা এবং ক্ষমতায়ন করা। আমরা রমণী এখন মোট দুইটি প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে- ‘Door to Door Mobile Entrepreneurs’ এবং ‘সুতোর খেলা’ (সেলাই ও ব্লক-বাটিক প্রশিক্ষণ)।